অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

সার্জেন্ট বার্গদাল আফগানিস্তানে প্রায় ৫ বছর ধরে বন্দী ছিলেন


৫ জন আফগান তালিবান বন্দী ১৩ বছর জেল খাটার পর ছাড়া পেয়ে তাদের পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে মিলিত হবার সুযোগ পেলেন। কিউবার গুয়ান্তানামো বে কারাগারে কাটে তাদের বন্দী জীবন। আফগানিস্তানে বন্দী, যুক্তরাষ্ট্রের সেনা সদস্য সার্জেন্ট ‘বো বার্গদাল’কে মুক্তি দেয়ার শর্তে ঐ ৫ জন তালেবান বন্দীকে মুক্তি দেয়া হয়। পেন্টাগন থেকে জেফ সেলদিন এবং ওয়াশিংটন থেকে জর্জ গ্রো’র প্রতিবেদন থেকে শোনাচ্ছেন সেলিম হোসেন।

সার্জেন্ট বার্গদাল আফগানিস্তানে প্রায় ৫ বছর ধরে বন্দী ছিলেন। যুক্তরাষ্ট্রের সরকারের বিশ্বাস তালিবান সংশ্লিষ্ট হাক্কানী নেটওয়ার্কের হাতে তিনি বন্দী ছিলৈন। প্রতিরক্ষা বিভাগের কর্মকর্তারা জানান কয়েক সপ্তাহ ধরে গোপন যোগাযোগ ও অনানুষ্ঠানিক আলোচনার ফসল হিসাবে মুক্তি পেলেন সার্জেন্ট বার্গদাল। কাতার সরকার এ বিষয়ে সমঝোতা করেছেন।


রিপাবলিকান কতৃপক্ষ বার্গদালের মুক্তি’কে স্বাগত জানালেও বন্দী বিনিময়ের বিষয়টির কড়া সমালোচনা করেন। বন্দী মুক্তিতে প্রেসিডেন্ট ওবামার সম্মতিকেও সমালোচনা করেন আফগান সরকার। তবে যুক্তরাস্ট্রের প্রতিরক্ষামন্ত্রী চাক হেগেল একে সঠিক বলে আখ্যা দিয়েছেন।

যুক্তরাষ্ট্রের সেনা কতৃপক্ষ সার্জেন্ট বার্গদালের মুক্তিনিয়ে এই বন্দী বিনিময় শর্ত যতোটা সম্ভব গোপন রাখার চেষ্টা করছেন। তালেবান কতৃপক্ষ এক সপ্তাহেরও খানিকটা আগে বার্গদালকে যুক্তরাষ্ট্রের বিশেষ বাহিনীর হাতে অর্পন করে এবং তাকে আফগানিস্তানের বাইরে আনা হয়।

পেন্টাগন মুখপাত্র কর্নেল ষ্টিভ ওয়ারেন বলেন জার্মানীর ল্যান্ডষ্টাল আঞ্চলিক মেডিকেল সেন্টারে চিকিৎসারত অবস্থায় রয়েছৈন বার্গদাল। ২৮ বছর বয়সী বার্গদাল একটু একটু করে কথা বলছেন কিভাবে তাকে আটকে রাখা হয়েছিল সেখান থেকে পালানোর চেষ্টা করতে গিয়ে ধরা পড়ে কি শাস্তি পেতে হয়েছিল এসব কথা বলছেন।

পেন্টাগন কর্মকর্তা জানান বার্গদালের চামড়া ও মুখের চিকিৎসা চলছে; তার অবস্থা স্থিতিশিল এবং ক্রমে সুস্থ হয়ে উঠছেন। কর্নেল ওয়ারেন বলেন, তাকে যুক্তরাষ্ট্রে ফিরিয়ে নেয়ার ব্যাপারে কোনো তাড়াহুড়োও নেই।

এ্যাক্ট: ১
“দ্বিতীয় পর্যায়ের একত্রীকরণ প্রক্রিয়ায় তাড়াহুড়া নেই, যতো সময় লাগে লাগুক। নির্দিষ্ট করে দেয়া কোন সময়সূচী নেই”

বার্গদালের মামলায় আগ্রহ বেড়েছে ১০ দিন আগে যখন তার মুক্তির ব্যাপারটি নিশ্চিত হয়। আইনপ্রণেতারাও বিষয়টি নিয়ে চিন্তিত। অনেকে বলেছেন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা বার্গদালের মুক্তির চুক্তি করতে গিয়ে কয়েকজন তালেবান বন্দীকে মুক্তি দিয়ে অনেক বড় ঝুঁকি নিয়ে ফেলেছেন।

অনেকে বলছেন বন্দী বিনিময় চুক্তি করে বার্গদালের মুক্তি ভবিষ্যতে অপহরণকালীদেরকে উৎসাহিত করে তুলতে পারে। এক বক্তব্যে যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষামন্ত্রী চাক হেগেল বলেন বার্গদালৈর মুক্তি যুক্তরাষ্ট্রের সেনা বাহিনী বা সাধারন মানুষের জন্য প্রকার কোনো ভয়ের কারন নয়। চাক হেগেল বুধবার আইনপ্রণেতাদের সামনে বিষয়টি সম্পর্কে ব্যাখা দেবেন।

আফগানিস্তানে বার্গদালের সেনা ইউনিটের টীম লীডার সাবেক সার্জেন্ট এভান বুয়েটো বলেন বার্গদালের মুক্তিতে তিনি খুশী হয়েছেন তবে তিনি বুঝতে পারছেন না বিষয়টি নিয়ে এ্যাতো বাড়াবিাড়ির কি আছে, কারন তার মতে বার্গদাল তার সেনা ঘাটি থেকে নিজের ইচ্ছায় বেরিয়ে গিয়েছিল। বন্দী মুক্তি নিয়ে ইতিবাচক নেতিবাচক উভয় রকমের বিতর্ক চলছে নানা মহলে।
XS
SM
MD
LG