অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

বাংলা গানের বিবর্তন : রবীন্দ্রনাথের একটি গান ও একাধিক প্রেম কথা

  • আনিস অহমেদ

বাংলা গানের বিবর্তন : রবীন্দ্রনাথের একটি গান ও একাধিক প্রেম কথা

বাংলা গানের বিবর্তন : রবীন্দ্রনাথের একটি গান ও একাধিক প্রেম কথা

বাংলা গানের বিবর্তন নিয়ে আমাদের এই সাপ্তাহিক আয়োজনের পঞ্চম পর্বে আজ আমরা তুলে ধরছি রবীন্দ্রনাথের খুব চেনা একটি গান , “ আমি চিনি গো চিনি তোমারে ওগো বিদেশিনি” । গানটি দু ভাবে গাওয়া হয়। আমাদের প্রিয় পরিচিত সুর থেকে যেন অনেকটা ভিন্ন । এই গানটি ১৯০৫ সালে রেকর্ড করেছেন পুর্ণ কুমারি দাসী । তখন পর্যন্ত এই গানের সুর ঠিক করেননি রবীন্দ্রনাথ। কাজেই বাইজি পূর্ণ কুমারি দাসী গানটি গেয়েছেন , অনেকটা নিজের মতো করে ।

গানটি লেখা হয়েছিল, ১৮৯৫ সালে শিলাইদহে। কাজেই সাধারণত যে কথাটি প্রচলিত যে আর্জেন্টিনার কবি ভিক্টোরিয়া ওকাম্পোকে মনে করে রবীন্দ্রনাথ এই গানটি লিখেছিলেন , সেটি আসলে ভুল কারণ রবীন্দ্রনাথ তো আর্জেন্টিনায় যান আরো অনেক পরে , সম্ভবত ১৯২৪ সালে । তবে এ কথাটা ঠিক যে রবীন্দ্রনাথ এই গানটি ভিক্টোরিয়া ওকাম্পোকে গেয়ে শুনিয়েছিলেন বটে এবং এর ইংরেজি অনুবাদ ও পড়ে শুনিয়েছেন।ভিক্টোরিয়া ওকাম্পোকে তিনি বিজয়া নামেই উল্লেখ করেছেন বিভিন্ন লেখায় এবং ১৯২৫ সালে তিনি তাঁর পূরবী কাব্যটি এই বিজয়াকেই উৎসর্গ করেছেন।

আসলে ভিক্টোরিয়া ওকাম্পোর সঙ্গে পরিচিত হবার পরে , যেমন , তেমনি আগেও রবীন্দ্রনাথ বহু নারীর কাছাকাছি এসছেন। ১৮৭৭ সালে , ১৬ বছর বয়সে রবীন্দ্রনাথ অল্প সময়ের জন্যে ইংল্যান্ডে গিয়ে স্কট পরিবারের সঙ্গে কিছু দিন ছিলেন। সেই সময়ে , সেই বাড়ির দুটি মেয়েকে বাংলা শেখাতে গিয়ে , তিনি ওদের প্রতি মুগ্ধ হন, ওরা রবীন্দ্রনাথের প্রেমে পড়ে আরও গভীর ভাবে। আর তারও আগে , রবীন্দ্রনাথের একদম কিশোর বয়সে , মুম্বা্ইয়ের একজন চিকিৎসকের কন্যা অন্নপূর্ণ তুর্খুদের সংস্পর্শে আসেন তিনি। বিলেতে যাবার আগে তিনি এই তরুণী , যার বয়স তার চেয়ে ছ বছর বেশি , তার প্রেমে পড়েছিলেন বলে বলা হয়। রবীন্দ্রনাথ এর নাম দিয়েছিলেন নলিনী । সুতরাং ঠিক কোন বিদেশিনিকে লক্ষ্য করে তিনি এই গানটি লিখেছিলেন , সে কথা নিয়ে দ্বিমতের অবকাশ থাকতে পারে । আমরা এই অনুষ্ঠানে এই গানটি চিন্ময় চট্টোপাধ্যায়ের কন্ঠেও তুলে ধরছি।

XS
SM
MD
LG