অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

সিঙ্গুরে যাদের জমি অধিগ্রহণ করা হয়েছিল, পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী তাদের আজ ক্ষতিপূরণের চেক দিলেন


Mamata Banerjee

Mamata Banerjee

দীর্ঘ টানা পোড়েন...২০০৬ সালে তদানীন্তন পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের ক্ষমতাসীন বামফ্রন্ট সরকার, রাজ্যের হুগলী জেলার সিঙ্গুরে টাটা শিল্প গোষ্ঠীর জন্য জমি অধিগ্রহণ করলেও তা শেষ পর্যন্ত বাস্তবায়ন শুধু মাত্র কৃষি জমি অধিকার লড়াই কে সামনে রেখেই এবং যার সর্বোপরি নেতৃত্বে ছিলেন তৃনমূল কংগ্রেস নেত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায় শুধু এই লড়াই আন্দোলন কে হাতিয়ার করেই ২০১১ সালে ৩৪ বছরের বাম শাসনের অবসান ঘটিয় আজ তারা এরাজ্যে ক্ষমতাসীন। এবং শুধু তাই নয় অতি সম্প্রতি সুপ্রিম কোর্ট রায় দিয়েছে ২০০৬ সালে তদানীন্তন রাজ্য সরকার যে কৃষি জমি অধিগ্রহণ করেছিল তা একেবারেই বেআইনী তারই ফলশ্রুতি স্বরুপ দীর্ঘ দশ বছরের লড়াই-আন্দোলনের শেষে আজ দুহাজার ষোলোর চোদ্দই সেপ্টেম্বর রাজ্যের হুগলী জেলার সিঙ্গুরের মাটিতে স্বপ্নপূরণের দিন পুরন করলেন তৃনমূল কংগ্রেস নেত্রী তথা রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়। এদিন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ৮০৬ জন কৃষকের হাতে তুলে দিলেন ক্ষতিপূরণের চেক৷ বললেন, “এটা মানুষের জয়। আমরা যে কথা দিয়েছিলাম তা আমরা রেখেছি৷ পুজোর আগে পুজোর আগাম শুভেচ্ছা জানিয়ে গেলাম বলেও মন্তব্য করেন মুখ্যমন্ত্রী। চেকের পাশাপাশি ৯১১৭ জনের হাতে জমির পরচাও তুলে দেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ প্রয়োজনে আজ রাত পর্যন্ত পরচা বিলির কাজ চলবে বলে জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী৷ মুখ্যমন্ত্রীর হাতে পরচা বিলি শুরু হয়, পরে অনিচ্ছুক কৃষকদের হাতে চেক-পরচা তুলে দেন রাজ্যের দশ মন্ত্রী৷ এদিন সিঙ্গুরে মমতাবন্দোপাধ্যায়ের মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন মেধা পাটেকর৷ তাঁর বক্তব্য, “আজ সিঙ্গুরের পুনর্জন্ম হল৷ ঐতিহাসিক আন্দোলনে ঐতিহাসিক জয় পেয়েছেন মমতাদি৷”এদিন সিঙ্গুর থেকেই ফের টাটাদের উদ্দেশে বিনিয়োগের বার্তা দেন মুখ্যমন্ত্রী৷ বলেন, “১০০০ একর নিয়ে জেদাজেদি করতে গিয়ে সিঙ্গুরে টাটারা কারখানাই করতে পারলেন না৷ এক সপ্তাহ সময় দিচ্ছি৷ নতুন করে ভাবুন৷” মুখ্যমন্ত্রীর স্পষ্ট বার্তা, বাংলাকে বঞ্চিত হতে দেব না৷ টাটাই হোক বা বিএমডব্লিউ হোক, সবাইকে স্বাগত৷ গোয়ালতোড়ে রাজ্য সরকারের ল্যান্ড ব্যাঙ্কে ১০০০ একর জমি রয়েছে৷ যাঁরা অটোমোবাইল কারখানা তৈরি করতে চান তাঁরা সরকারের কাছে প্রস্তাব নিয়ে আসতে পারেন বলে জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী৷
এ সম্পর্কে বিস্তারিত জানাচ্ছেন কলকাতা থেকে পরমাশিষ ঘোষ রায়।


XS
SM
MD
LG