অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

সিরিয়ার উত্তরের আলেপ্পোতে যাই ঘটছে, তা থামাতে কঠোর পদক্ষেপ নেওয়া দরকার- জাতিসংঘ বলছে


জাতিসংঘের মানবাধিকার বিভাগীয় প্রধান কর্তাব্যক্তি আজ মঙ্গলবার বলেছেন- সিরিয়ার উত্তরাঞ্চলবর্তী শহর আলেপ্পোতে যাই ঘটছে, সেটা থামাতে কঠোর পদক্ষেপ নেওয়া দরকার। সেখানকার বিদ্রোহি দখলিত পূর্বাঞ্চলবর্তী মহল্লাগুলো নিশানা করে যে আক্রমানত্মক অভিযান চলছে,অসামরিক জনগোষ্ঠির ওপর তার প্রভাব পড়ছে বিপর্য্যয়কর।

এই যে ভয়ংকর ধংসাত্মক-সহিংস তৎপরতা সেখানে চলছে এর মোকাবেলায় বড়ো মাপের কোনো পদক্ষেপ নিতে হবেই- বলেছেন যেইদ রাদ আল হূসেইন।

কোনো প্রস্তাবের পথ আগলাতে সদস্য দেশগুলো যাতে তাদের ভিটো শক্তি প্রয়োগ না করতে পারে সেবাবদে নিয়ম পাশ করতে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন তিনি। সেখানে যুদ্ধাপরাধ-মানবতা বিরোধী অপরাধ বা গণহত্যার মতো ঘটনা ঘটে থাকতে পারে বলে তিনি গভীর উদ্বেগ ব্যক্ত করেছেন।

ইতিমধ্যে, সোমবারের এক বিমান হামলায় , বছরের গোড়ার দিকে আল কায়েদা গোষ্ঠী হতে বিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়া সিরিয় ইসলামপন্থী গোষ্ঠীর পদস্থ এক নেতা নিহত হয়েছেন।

অতীতে জাবহাত আল নূসরা নামে পরিচিত ঐ গ্রুপ জাবহাত ফাতাহ আস শাম বলেছে- উত্তর পশ্চিমাঞ্চলবর্তী ইদলীব শহরে তাঁর মোটোরযানের ওপর আঘাত হানা হ’লে ঐ নেতা আবূ আল ফায়সাল আল মাসরী নিহত হন। যুক্তরাষ্ট্র সামরিক বাহিনী বলছে- ঐ অঞ্চলে মাসরীকে নিশানা করে বিমান হামলা চালানো হয়েছে- কিন্তু ঐ হামলার ফলাফল সম্পর্কে মূল্যায়নের প্রক্রিয়া চলছের এখনো।

ওদিকে, সিরিয়ার উত্তর পুর্বাঞ্চলে আত্মঘাাতি এক বোমাবাজের আক্রমনে সোমবার কমসে কম ২০ ব্যক্তির প্রাণ বিনাশ হয়েছে। প্রধানত: কুর্দী বাহিনীর নিয়ন্ত্রনাধীন এলাকাটিতে সিরিয় সরকারের কিছু কিছু ঘাঁটিও মজুদ রয়েছে এবং ওখানকারই একটি শহর হাসাকের উপকন্ঠেই ঐ বোমা বিস্ফোরণ ঘটে।

XS
SM
MD
LG