অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

শুক্রবার তিনটি সন্ত্রাসী আক্রমণের পর ফ্রান্সের প্রধানমন্ত্রী আজ শনিবার সতর্ক করে দিয়েছেন যে ফ্রান্সে আরও সন্ত্রাসী হামলা হতে পারে। গতকাল সন্ত্রাসীদের ঐ সব হামলা কেবল ফ্রান্সে নয় , তিউনেশিয়া এবং কুয়েতেও আঘাত হানে। ম্যানুয়েল ভলস বলেন , প্রশ্নটা এ নয় যে আরেকটা সন্ত্রাসী আক্রশন হবে কী না , প্রশ্নটা হচ্ছে কবে হামলা হবে।

শুক্রবার তিনটি মহদেশ জুড়ে সংঘটিত এই হামলার নিন্দে জানিয়েছেন বিশ্বের নের্তৃত্ববৃন্দ। ঐ সব আক্রমণে কয়েক ঘন্টার মধ্যেই বেশ কিছু লোক প্রাণ হারান। হোয়াইট হাউজ এই আক্রমণকে ঘৃণ্য বলে অভিহিত করেছে এবং এই হামলার অব্যবহিত পরে ই প্রকাশিত এক বিবৃতিতে বলেছে , “ কোন সমাজেই সন্ত্রাসবাদের কোন স্ থান নেই”।

শুক্রবার দু জন বন্দুকধারী তিউনেশিয়ার সুজ শহরে সৈকতে পর্যটকদের এক হোটেলে ঝটিকাবেগে প্রবেশ করে অন্তত ৩৮ জনকে হত্যা করেছে যাদের অধিকাংশই ব্রিটিশ নাগরিক। প্রধানমন্ত্রী হাবিব এসিদ বলেন যে তিনি সেই সব মসজিদ বন্ধ করে দিচ্ছেন যেগুলো সরকারের ধর্মীয় মন্ত্রকের নিয়ন্ত্রণের বাইরে। তিনি বলেন আ্ইন মেনে না চললে কোন মসজিদকেই ছাড় দেওয়া হবে না। কুয়েতে একজন আত্মঘাতী বোমাবাজ জনকহূল একটি মসজিদে নিজের দেহে বিস্ফোরণ ঘটিয়ে কুড়ি জনের ও বেশি মানুষের প্রাণনাশ করেছে।

ফ্রান্সে হামলাকারীরা যুক্তরাষ্ট্র ভিত্তিক একটি গ্যাস কোম্পানীর দপ্তরে গাড়ি নিয়ে প্রবেশ করে এবং প একজন ব্যবসায়ীর শিরশ্ছেদ করে এবং প্রবেশ পথে তার মস্তকবিহিন দেহ ফেলে যায়। প্রাণহীন ঐ দেহে আরবীতে কিছু লিখে যায়। দমকল বাহিনীর লোকেরা বলছে যে সন্দেহভাজন ঐ ব্যক্তির নাম ইয়াসিন সালহি । সালহি বিবাহিত এবং তিন সন্তানের জনক।

এ দিকে জাতিসংঘের মহাসচিব বলেছেন যে যারা এর জন্যে দায়ি তাদের দ্রুত বিচারের সম্মুখীন করা উচিৎ। টুইটারে এক বিবৃতিতে কথিত ইসলামিক স্টেট তিউনেশিয়ার সমুদ্র সৈকতে ঐ আক্রমণের দায় স্বীকার করে

XS
SM
MD
LG