অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

গড় হারে দুর্নীতি বেড়েছে গোটা বিশ্বে: ট্রান্সপেরেন্সী ইন্টারন্যাশনাল


বিশ্বব্যাপী দুর্নীতির অবস্থা তুলে ধরে বুধবার এ বছরের রিপোর্ট প্রকাশ করেছে ট্রান্সপেরেন্সী ইন্টারন্যাশনাল। দুর্নীতির বিচারে খুব ভালো আছে, এ রিপোর্টে কোনো দেশই এমন বিবেচনায় আসেনি। এ নিয়ে ভয়েস অব আমেরিকার শ্যারোন বেনের রিপোর্টের অংশবিশেষ এবং এ্যাডভোকেট সুলতানা কামালের সঙ্গে কথা বলে রিপোর্ট করেছেন সেলিম হোসেন।

সবচেয়ে বেশী দুর্নীতিগ্রস্থকে জিরো এবং সবচেয়ে কম দুর্নীতিগ্রস্থকে ১০০ নম্বরের বিচেনায় নিয়ে ট্রান্সপেরেন্সী ইন্টারন্যাশনালের রিপোর্টে দেখানো হয়েছে বিশ্বের মোট দেশসমূহের দুই তৃতীয়াংশেরও বেশী, পঞ্চাশের কম নম্বর পেয়েছে।

রিপোর্ট অনুসারে সোমালিয়া, আফগানিস্তান, সুদান, ইরাক ও উত্তর কোরিয়ার মত সংঘাতে লিপ্ত দেশগুলো বেশী দুনীতিগ্রস্থ; আর কম দুর্নীতিগ্রস্থ দেশের মধ্যে রয়েছে স্ক্যান্ডিনেভিয়ান জাতি, নরওয়ে, ডেনমার্ক ও সুইডেন এবং নিউজিল্যান্ড।

রিপোর্টে বলা হয় দুর্নীতি হওয়া অথবা না হওয়াটা নির্ভর করে দেশের শক্তিশালি নাগরিক সমাজ, আইনের শাষন, শুশাষন এবং দেশের অর্থনৈতিক ও মানবিক উন্নয়নের মধ্যকার আন্ত:সম্পর্কের ওপর।

ট্রান্সপেরেন্সী ইন্টররন্যাশনালের ওয়াশিংটনের সিনিয়র পলিসি ডিরেক্টর ড্যানিয়েল ডুডিস বললেন শক্ত দুর্নীতি বিরোধী আইন ছাড়া অর্থনৈতিকভাবে দুর্বল দেশসমূহে দুর্নীতি কমানো কঠিন। দুর্নীতির কারনে সেখানে বিদেশী সাহায্য এবং বিনিয়োগও বাধাগ্রস্থ হয়।

“যদি তারা দেখে খুব দরিদ্র দেশ দুর্নীতির তালিকায় শীর্ষে, তাতে সাহায্যকারী ও বিনিয়োগকারী খানিকটা ঘাবড়ে যায় সেই দেশে বিনিয়োগ করতে”।

প্রতিষ্ঠানটির রিপোর্টে বলা হয় অস্থিতিশীল নিরাপত্তা অবস্থা, সংঘাত এবং যুদ্ধ দুর্নীতিকে ত্বরান্নিত করে।

ইরাকে সম্প্রতি দেখা গেছে সেনাবাহিনীতে ৫০ হাজার অদৃশ্য সেনা সদস্য, অর্থাৎ অস্তিত্ব বিহিন সেনা সদসস্যের নামে বেতন তোলা হচ্ছে। এর ফলাফল হচ্ছে ভয়াবহ। আর এর ফলে সেনাবাহিনীর মধ্যে বিতর্ক সৃষ্টি হওয়ায় ইসলামিক স্টেট জঙ্গীদের সঙ্গে যুদ্ধে মনোযোগী হতে পারছেন না তারা।

মধ্যপ্রাচ্যে ও উত্তর আফ্রিকায় রাজনৈতিক দুর্নীতি হচ্ছে উন্নয়নের প্রধান বাঁধা। অবৈধ অর্থের ছড়াছড়ি দেখা গেছে সাহারা মরুভুমির দক্ষিনাঞ্চলেও। ডুডিস বলেন ঐসব অঞ্চলে দুর্নীতি শীর্ষ থেকে সর্বনিম্ন পর্যায়ে বাসা বেঁধেছে।

“এসব অঞ্চলে পুলিশ, স্বাস্থ্য খাত, শিক্ষা খাত সহ সর্বত্র শুশাষনের ক্ষেত্রে দুর্নীতি বেড়েই চলছে। দুর্ভাগ্যবশত: এখানে প্রতিটি মানুষকে প্রতিটি কাজ করাতেই ঘুষ দিতে হয়।

আইভরি কোস্ট, মিশর, জর্ডান, মালিতে দুর্নীতির অবস্থা আগের চেয়ে কিছুটা উন্নতি ঘটেছে।

আফগানিস্তানে দুর্নীতি মহামারীর মতো এমনভাবে ছড়িয়ে পড়েছে যে বেশীরভাগ মানুষ ঘুষকে সরকারী কর্মকর্তাদের জন্য বৈধ ব্যপার মনে করেন। ।

বাংলাদেশে আগের চেয়ে দুর্নীতি বেড়েছে এমন রিপোর্ট বেরিয়েছে ট্রান্সপেরেন্সী ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের রিপার্টে। কেন, সে বিষয়ে কথা বললেন ট্রান্সপেরেন্সী ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ ও আইন ও শালিশ কেন্দ্রের প্রধান এ্যাডভোকেট সুলতানা কামাল:

বাংলাদেশকে কিভাবে দুর্নিীত মুক্ত করা যায় সে ব্যাপারে পরামর্শ দিলেন এ্যাডভোকেট সুলতানা কামাল

যুক্তরাস্ট্রের পররাস্ট্রমন্ত্রী জন কেরী সম্প্রতি বলেছেন দুর্নীতি একটি দেশের অর্থনীতিকে ধ্বংস করে দেয়। তবে যুক্তরাস্ট্র ট্রান্সপেরেন্সী ইন্টারন্যাশনালের দুর্নীতির ইনডেক্সে ১০০ এর মধ্যে ৭৪ নম্বর পেয়েছে।

XS
SM
MD
LG