অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

ব্রেক্সিট পরবর্তী রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ে বৃটেন যখন টালমাটাল , তখন স্কটল্যান্ড বৃটিশ সরকারের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে। তারা বলেছে, বৃটেন ইউরোপীয় ইউনিয়ন ছাড়লেও তারা ছাড়বে না।

স্কটিশ ফার্স্ট মিনিস্টার নিকোলা স্টার্জেন সবাইকে হতবাক করে দিয়ে শুক্রবার জানিয়েছেন, তার সিদ্ধান্ত পাক্কা। ব্রেক্সিট গণভোটে তার দেশের জনগণ ইইউ’তে থাকার পক্ষে মত দিয়েছে। তাদের মতামত উপেক্ষা করে কোন সিদ্ধান্ত নেয়া যায় না।

বৃটিশ প্রধানমন্ত্রী তেরেসা মে গত সপ্তাহে বলেছিলেন, আর দেরি নয়, আগামী বছরের মার্চের মধ্যেই ব্রেক্সিট কার্যকর করার প্রক্রিয়া শুরু করবে তার দেশ। এর প্রেক্ষাপটেই নিকোলা স্টার্জেন ত্বরিত এ সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বলে ধারণা করা হচ্ছে।

ওদিকে তেরেসা মে’র সিদ্ধান্ত ঘোষণার পর বৃটিশ পাউন্ডের অস্বাভাবিক দরপতন অব্যাহত রয়েছে। ব্যাপক মুদ্রাস্ফিতির আশঙ্কাও করছেন অর্থনীতিবিদরা।

নিকোলা স্টার্জেনের মনোভাব প্রকাশের পর বৃটিশ রাজনীতিতে নয়া হিসাব-নিকাশ চলছে। বলা হচ্ছে, স্কটিশ নেত্রী কি বৃটেন ছাড়ার জন্য আরেকটি গণভোটের প্রস্তুতি নিচ্ছেন?

২০১৪ সালে অনুষ্ঠিত গণভোটে স্কটল্যান্ড অবশ্য হেরে যায়। নিকোলা স্টার্জেন সংবাদ মাধ্যমকে বলেছেন, এখনই তিনি গণভোটের চিন্তা করছেন না।

সংবিধান বিশেষজ্ঞ মাইকেল কেটিন বলেছেন, স্কটিশ নেত্রীর ইচ্ছে পূরণ হবার নয়। কারণ এক দেশে দুই আইন চলে কিভাবে? লন্ডন থেকে মতিউর রহমান চৌধুরী।

XS
SM
MD
LG