অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

মুসলিম ইস্যু নিয়ে ডোনাল্ড ট্রাম্প ও মার্কো রুবিওর মধ্যে বিতর্ক হয়ে গেলো। মাঝখানে উঠে এলো বংলাদেশ প্রসঙ্গ। এ দু’জনই মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রিপাবলিকান দলের মনোনয়ন প্রত্যাশী। ডোনাল্ড ট্রাম্প ইসলাম বিদ্বেষী মন্তব্য দিয়ে আলোচিত তামাম দুনিয়া জুড়ে। আর এই বিতর্কের এক পর্যায়ে মার্কো রুবিও বাংলাদেশের মুসলিমদের প্রসঙ্গ টেনে এনেছেন। ট্রাম্পের মন্তব্যে মুসলিম দেশগুলোতে কি ধরনের প্রভাব পড়তে পারে সে কথাও স্মরণ করিয়ে দেন।

আর এই বিতর্কের শুরু সিএনএন-এ ট্রাম্পের দেয়া এক সাক্ষাতকারে। সেখানে ট্রাম্প মন্তব্য করেছিলেন, ইসলাম আমাদের ঘৃণা করে। রিপাবলিকান বিতর্কে ঐ মন্তব্যের প্রসঙ্গ টেনে ট্রাম্পকে প্রশ্ন করা হয়, তিনি কি ১৬০ কোটি মুসলিমের কথা বলছেন? ট্রাম্প এর জবাবে বলেন, 'আই মিন এ লট অব দেম' বা তাদের অনেকের কথাই আমি বোঝাতে চেয়েছি। শেষমেষ ট্রাম্প বলেন, তার করা ঐ মন্তব্যের পক্ষে তিনি অটল।

সঞ্চালক তখন এই ইস্যুতে অপর মনোনয়ন প্রত্যাশী মার্কো রুবিওকে প্রশ্ন করেন। রুবিও বলেন, ডোনাল্ড ট্রাম্প যেসব কথা বলেন তাতে অনেক মানুষই আকর্ষণ খুঁজে পান। কিন্তু সমস্যা হলো প্রেসিডেন্টরা ইচ্ছা মতো যা খুশি তা বলতে পারেন না। কারণ এসব কথার পরিণতি সুদুঢ়প্রসারী। প্রতিক্রিয়া হয় এখানে এবং বিশ্বজুড়ে। এরপরই তিনি বাংলাদেশের উদাহরণ টানেন।

তিনি বলেন, দু’দিন আগে দারুন এক দম্পতির সঙ্গে তার সাক্ষাত হয়। তারা বাংলাদেশে মিশনারি হিসেবে কাজ করেন। মিশনারিদের জন্য এটা কঠিন কর্মস্থল। এটা একটি মুসলিম দেশ। তাদের নিরাপত্তা অনেকখানি নির্ভর করে এখানকার বন্ধুভাবাপন্ন মুসলিমদের ওপর। যারা তাদের পাশে বসবাস করেন। তারা হয়তো ধর্মান্তরিত হন না। কিন্তু মিশনারিদের সুরক্ষিত রাখেন। নিশ্চিতভাবে তাদের ভালো-মন্দ খেয়াল রাখেন।

রুবিও আরো বলেন, ঐ দম্পতি তাকে বলেছেন, আমেরিকা থেকে যখন খবর আসে বিশ্ব রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বরা মন্তব্য করছেন যে, আমেরিকা মুসলিমদের পছন্দ করে না, তখন তাদের কর্মস্থল ক্রমেই প্রতিকূল হয়ে উঠে। কাজেই এটা সত্যিকারের প্রভাব। মুসলিমদের প্রসঙ্গে রুবিও আরো বলেন, মুসলিমরা সবাই উগ্রপন্থী নয়। উগ্রপন্থীরা ইসলাম ধর্মের জন্য সমস্যা। যারা উগ্রপন্থী নয় সেসব মুসলিমদের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের কাজ করতে হবে।


ঢাকা থেকে মতিউর রহমান চৌধুরী।

XS
SM
MD
LG