অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

ভারত যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক বানিজ্য পাঁচগূন বাড়িয়ে বছরে পঞ্চাশ হাজার কোটি ডলার করতে চাইছে


যুক্তরাষ্ট্র ও ভারত সরকারের মন্ত্রীবর্গ দেশ দূ’টির মধ্যেকার কৌশলগত ও অর্থনৈতিক সম্পর্ক উল্লেখযোগ্য মাত্রায় সম্প্রসারিত করা নিয়ে আলোচনা-কথাবার্তা চালিয়ে যাচ্ছেন- মঙ্গলবার যুক্তরাষ্ট্রের সফররত পররাষ্ট্রমন্ত্রী জন কেরী যেটাকে কিনা যথোপযুক্তভাবেই সময়োচিত উদ্যোগ বলে অভিহিত করেছেন। যুক্তরাষ্ট্র ও ভারতের মধ্যেকার এই যে দ্বিতীয় কৌশলগত ও বানিজ্যিক সংলাপ – এটা এই প্রথমবার ভারতে অনুষ্ঠিত হলো- এবং এ সংলাপের মধ্যে দিয়ে ঐতিহ্যগত ধারায় জোট নিরপেক্ষ নতুন দিল্লি প্রশাসনকে তাৎপর্য্যপুর্ণভাবে ওয়াশিংটনের ঘনিষ্ঠ সান্নিধ্যে নিয়ে আসছে সেই পরিস্থিতিতে, ওয়াশিংটন-নতুন দিল্লি দু’ শরিকই যেখানে কিনা চীনের দৃপ্ত প্রত্যয়সূচক অবস্থান নিয়ে বেশ কিছু চিন্তান্বিতই। সংলাপ সূচনায় প্রারম্ভিক মন্তব্যে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সূষমা সরাজ বলেন- দ্বিপাক্ষিক এ সম্পর্কের গভীরতা বিরল দৃষ্টান্ত।

ভারত ইদানিং বিপূল সংখ্যক বানিজ্য বিধিনিষেধ হঠিয়ে দিয়ে ওয়াশিংটনের সঙ্গে তার দ্বিপাক্ষিক বানিজ্য পাঁচ গূন বাড়িয়ে বাৎসরিক পঞ্চাশ হাজার কোটির কোঠায় নিয়ে তুলতে চাইছে। যুক্তরাষ্ট্রের বানিজ্য মন্ত্রী পেনী প্রিযটকার বলেন- ঐ লক্ষমাত্রায় পৌঁছুতে চলতি সংলাপে শরিক যাঁরা তাঁদেরকে আরো বড়ো মাপে চিন্তা করতে হবে – বলিষ্ঠ ভুমিকায় কর্মোদ্যমি হতে হবে।একই সময়ে, একই সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্র-ভারতের মধ্যেকার প্রধান নির্বাহী কর্তা CE0 ফোরামের বৈঠক চলে বিশাল দু’ই শিল্পগোষ্ঠীর দু’ই অধিকর্তা টাটা সান্সের চেয়ারম্যান সাইরাস মিস্ত্রী এবং হানিওয়েল চেয়ারম্যান ডেইভ কোটের মধ্যে । জন কেরী ইতিমধ্যে, আঞ্চলিক নিরাপত্তা ও সন্ত্রাস প্রতিরোধ এবং কৌশলগত শরিকানা সম্পর্ক নিবিড়করণ নিয়ে আলোচনায় বসেন ভারতের জাতীয় নিরাপত্তা পরামর্শক অজিত দোভালের সঙ্গে।

XS
SM
MD
LG