অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

পশ্চিমবঙ্গে জঙ্গিহানার আশঙ্কায় নিরাপত্তা জোরদার করার পরামর্শ


পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য প্রশাসনের সদরদপ্তর নবান্ন সহ রাজ্যের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ভবন, প্রতিষ্ঠান, বাণিজ্যিক কেন্দ্র ও ধর্মীয়স্থানে জঙ্গিহানার আশঙ্কায় নিরাপত্তা আরও জোরদার করার পরামর্শ দিল ন্যাশনাল সিকিউরিটি গার্ড (এনএসজি)। নবান্নে এসে রাজ্যের স্বরাষ্ট্র ও পুলিশ বিভাগের শীর্ষকর্তাদের সঙ্গে বৈঠকে এই আশঙ্কার কথা জানিয়ে কী ভাবে সতর্ক হতে হবে, তাও বাতলে দিয়ে যান এনএসজি প্রধান সুধীর প্রতাপ সিং। এরই পাশাপাশি রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সামগ্রিক নিরাপত্তার বিষয়টি নিয়েও বৈঠক করেন এনএসজি প্রধান। নবান্ন সূত্রে জানা গিয়েছে, নিরাপত্তার ক্ষেত্রে রাজ্যের এই সচিবালয়ে বেশ কিছু খামতির উল্লেখ করেছে এনএসজি। এমনকী মুখ্যমন্ত্রীর দপ্তরসহ তাঁর অফিসঘরের নিরাপত্তা আরও বাড়ানোর উপর জোর দিয়েছেন জঙ্গি দমনকারী এই এলিট সংস্থার কর্তা। রাজ্য গোয়েন্দা দপ্তরের এক আধিকারিকের কথায়, এনএসজি’র আপ্তবাক্য হল, সর্বত্র সর্বোত্তম সুরক্ষা। আর সেটা নবান্নসহ রাজ্যের গুরুত্বপূর্ণ অংশগুলিতে আরও আঁটসাঁট করতেই এনএসজি কর্তাদের সঙ্গে রাজ্য স্বরাষ্ট্রদপ্তরের এই গুরুত্বপূর্ণ বৈঠক হয়েছে।

স্বরাষ্ট্রদপ্তর সূত্রে জানা গিয়েছে, মহাকরণ থেকে সচিবালয় স্থানান্তরিত হওয়ার পর নবান্নের নিরাপত্তা ব্যবস্থা খতিয়ে দেখতে উদ্যোগী হয় এনএসজি। শুধু নবান্ন নয়, গোটা এলাকাজুড়ে ক্যামেরায় নজরদারি বাড়াতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। স্বরাষ্ট্রদপ্তর সূত্রে জানা গিয়েছে, এনএসজি’র সেই সমস্ত পরামর্শ মেনে নিরাপত্তার ফাঁকফোকর মেরামত করা হয়েছে। স্বরাষ্ট্রদপ্তর সূত্রে জানা গিয়েছে, ২০১৪ সালের অক্টোবর মাসের গোড়ায় খাগড়াগড় বিস্ফোরণকাণ্ডের পর জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত দোভাল এবং এনএসজি’র তৎকালীন প্রধান জয়ন্তনারায়ণ চৌধুরি নবান্নে এসে রাজ্যের সামগ্রিক নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়ে মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক করে যান। বাংলাদেশের জঙ্গি সংগঠন জামাত-উল-মুজাহিদিনের তৎপরতা এবং এ রাজ্যে তার শাখাপ্রশাখা বিস্তার খবরের প্রেক্ষেতেই এই নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করার প্রস্তুতি বলেই স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক সূত্রের খবর।

XS
SM
MD
LG