অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

সাম্প্রতিক এক জরিপে দেখা গেছে বিশ্বব্যাপী রেকর্ড সংখ্যক নারী সংসদ সদস্য হিসাবে দায়িত্ব পালন করছেন। গত বছর আন্ত-সংসদীয় জোট কতৃক প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, প্রায় ২২ শতাংশ সংসদীয় আসন নারীদের দখলে। জেনেভায় আন্ত-সংসদীয় জোট সদরদপ্তর থেকে এ নিয়ে ভয়েস অব আমেরিকার লিসা স্লেইনের তথ্য নিয়ে বাংলাদেশের নারী নেত্রী মালেকা বেগমের বিশ্লেষণসহ রিপোর্ট করেছেন সেলিম হোসেন:

বিশ্বব্যাপী নারী সংসদ সদস্য ১.৫ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। সংখ্যার হিসাবে শুনতে খুব বেশী হয়ত শোনাচ্ছে না। কিন্তু আন্ত-সংসদীয় জোট বলেছে এই ধারা যদি অব্যাহত থাকে; আগামী কুড়ি বছরে সংসদে লিঙ্গ সমতার হিসাবে নারীরা এগিয়ে যাবেন।

আন্ত-সংসদীয় জোট জানায় নারী সংসদ সদস্যদের সংখ্যা বৃদ্ধির বিভিন্ন কারন রয়েছে। যেমন সংসদ সদস্য হিসাবে নারীদের নির্বাচিত হওয়া বা নিয়োগ দেয়ার বিষয়টি সহজ করার জন্য বিভিন্ন দেশে আসন সংরক্ষণ করা।

বাংলাদেশের সংসদেও বেশ ভালো সংখ্যক আসন নারীর দখলে। অন্যান্য খাতের ন্যায় রাজনীতিতে বাংলাদেশে দ্রুত বাড়ছে নারীদের অংশগ্রহন। ভবিষ্যতে তা আরো বাড়বে, বেশ জোর দিয়েই বললেন নারী নেত্রী মালেকা বেগম:


১৮৯টি দেশে করা জরিপে দেখা গেছে জাতীয় সংসদে নারীদের সংখ্যার দিক দিয়ে শীর্ষে রয়েছে রুয়ান্ডা, এ্যান্ডোরা, কিউবা, সুইডেন এবং দক্ষিন আফ্রিকা। আর সর্বনিম্নে রয়েছে মাইক্রোনেশিয়া, পালাউ, কাতার এবং ভানুয়াতু, যেখানকার আইনপ্রণেতারা সকলেই পুরুষ।

প্রতিবেদনে বলা হয় মহিলা সংসদ সদস্যের গড় হিসাবে সবোর্চ্চ সংখ্যা ১৫.২ শতাংশ, আমেরিকায়। তবে গত বছর সৌদী আরবের শুরা কাউন্সিলে ৩০ রমনীর নিয়োগ এবং জর্ডানের সংসদে ১৮ নারী নির্বাচিতহওয়ার মধ্য দিয়ে আরব বিশ্বে সবোর্চ্চ অর্জন সম্ভব হয়েছে।

আন্ত-সংসদীয় জোট মহাসচিব এ্যান্ডার্স জনসন বলেন আফ্রিকায় স্থিতিশীল অগ্রগতি অব্যহত রয়েছে। তিনি বলেন প্রায় ২০ বছর আগে আফ্রিকায় ১০ শতাংশেরও কম নারী সাংসদ ছিলেন। বর্তমানে ২২.৫ শতাংশ।

“বিশ্বের সবচেয়ে বেশী নারী সাংসদের দেশ রয়েছে আফ্রিকায়, আর রুয়ান্ডা হচ্ছে সর্বকালের সর্বপ্রথম দেশ যেখানে ষাইট শতাংশেরও বেশী নারী সাংসদ...রয়েছে জনমত, জনসমথৃনও। ক্যামেরুনে, কেনিয়ায়, টোগোয়, জিম্বাবুয়েতে- নারীরা ভালো করছেন”।

ইউরোপে বৃদ্ধি পাচ্ছে নারী সাংসদদের সংখ্যা। এশিয়া প্রশান্ত মহ্সাগরীয় অঞ্চলেও চেষ্টা চলছে সংসদে নারীদের অংশগ্রহণ বৃদ্ধির। আন্ত-সংসদীয় জোট এর জেন্ডার প্রোগামের ব্যবস্থাপক কারিন জাব্রে বলেন নারীর অংশগ্রহণ ব্যাতিরেকে কোনো সংসদ বিশ্বের প্রতিনিধিত্বকারী হতে পারে না। কারন বিশ্বের অর্ধেক জনসংখ্যাই নারী।

আন্ত-সংসদীয় জোটের প্রতিবেদনে বলা হয় গত বছর বিপুল সংখ্যক নারী রাজনৈতিক সংঘাতের লক্ষ্য হন। নির্বাচনী সহিংসতায় তারা নানা হুমকী, ভিতী প্রদর্শন, শারিরিক লাঞ্ছনা ও নানা ধরনের নির্যাতনের শিকার হন। এসব করা হয়—যাতে ভয় পেয়ে তারা রাজনীতির বাইরে থাকেন।
XS
SM
MD
LG