অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

বাংলাদেশে হাতি হত্যার প্রতিবাদে পাপেট শো


বাংলাদেশের বন বিভাগ এর তোলা এবং প্রকাশ করা এই ফটোতে কক্সবাজারের ঈদগাহে একটি এশিয়ান হাতির মৃতদেহের চারপাশে দর্শকদের জড়ো হতে দেখা যাচ্ছে।৯ নভেম্বর ২০২১।(ছবি-এএফপি/বাংলাদেশের বন বিভাগ)

বাংলাদেশ হাতি হত্যার প্রতিবাদে এবং দোষীদের বিচারের দাবিতে সমাবেশ, মানববন্ধন ও পাপেট শো করেছে ডীপ ইকোলজি এন্ড স্নেক রেসকিউ ফাউন্ডেশন।

বুধবার জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে এ আয়োজন করে সংগঠনটি। সমাবেশে সংগঠনটির প্রায় অর্ধশত সদস্য উপস্থিত ছিলেন।

প্রতিবাদী সমাবেশে কাকতাড়ুয়া পাপেট থিয়েটার সচেতনামূলক একটি পাপেট প্রদর্শনী করে। প্রদর্শনীতে হাতি রক্ষায় এগিয়ে আসা ও হাতির প্রতি সহানুভূতিশীল হতে আহ্বান জানানো হয়। আসাদুজ্জামান আশিকের নেতৃত্বে পাপেট প্রদর্শনীতে অংশ নেন তানভির তারেক, সোহানা তানজিম, জারিন তাসনিম তুলতুল, নুসরাত জাহান শিল্পী।

সমাবেশে ডীপ ইকোলজি এন্ড স্নেক রেসকিউ ফাউন্ডেশনের সভাপতি মাহফুজুর রহমান বলেন, "হাতি হত্যার প্রতিবাদে ও সচেতনতা সৃষ্টি করতেই আমাদের আজকের আয়োজন। হাতি হলো প্রকৃতির প্রাণ। অথচ সেই প্রাণকে হত্যা করা হচ্ছে নির্বিচারে। প্রতিনিয়ত দেশে অসংখ্য হাতি হত্যার শিকার হচ্ছে।"

তিনি আরও বলেন, "বর্তমানে দেশে ২৫০টির মত হাতি রয়েছে। তবে নিয়মিত যেভাবে হাতি হত্যা করা হচ্ছে তাতে শীঘ্রই এই সংখ্যাটি শূন্যের কোঠায় নেমে আসবে। হাতি হত্যার সময় বলা হচ্ছে হাতি ফসল ধ্বংস করছে কিন্তু এটা কেউ বলছে না যে হাতির আবাস দখল করে মানুষ জনবসতি গড়ে তুলছে, ফসলের আবাদ করছে।"

মাহফুজ বলেন, বন বিভাগের উচিত হাতি রক্ষায় কঠোর নিরাপত্তা বলয় সৃষ্টি করার পাশাপাশি নিরাপদ বাসস্থান নিশ্চিত করা। মানব সমাজ যেন হাতিদের লোকালয়ে না চলে যায় সেদিকে লক্ষ্য রাখা।

দেশের বন্যপ্রাণী রক্ষা ও হাতির নিরাপদ আবাসস্থল করার দাবি দীর্ঘদিনের। তবে এ ব্যাপারে বন্যপ্রাণী অধিদপ্তর কার্যকরী ভূমিকা রাখতে পারছে না বলে দাবি করেন বন্যপ্রাণী গবেষক ও আলোকচিত্রী আদনান আজাদ। তিনি বলেন, "বনবিভাগ ও আইইউসিএনের হিসাব অনুযায়ী বাংলাদেশে হাতি মহাবিপন্ন তালিকায় আছে এবং সবমিলিয়ে দেশে মাত্র ২৬৮টি এশীয় হাতি বাস করছে। এরমধ্যে আমাদের জানা মতে গত ৯ নভেম্বর থেকে দেশের বিভিন্ন স্থানে ৫টি হাতি হত্যার ঘটনা ঘটেছে। শেরপুরে একটি হাতিকে গুলি করে হত্যা করা হয়েছে। বাকিগুলোকে বৈদ্যুতিক শক দিয়ে হত্যা করা হয়েছে।"

আদনান আজাদ আরও বলেন, "হাতি হত্যা প্রতিরোধে জন সাধারণের মধ্যে সচেতনতা বৃদ্ধির পাশাপাশি প্রশাসনকে আরও কার্যকরী ভূমিকা পালন করতে হবে। অন্যথায় হাতি হত্যা বেড়েই চলবে।"

XS
SM
MD
LG