অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

মানবাধিকার লংঘনের শীর্ষে ভেনিজুয়েলা-চীন বাংলাদেশের নির্বাচনে অনিয়মের অভিযোগ যুক্তরাষ্ট্রের


গোটা বিশ্ব মানবাধিকার লংঘনের নিক্তিতে ভেনিজুয়েলা এবং চীনের অবস্থা সবচেয়ে খারাপ। যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র বিভাগের বার্ষিক মানবাধিকার প্রতিবেদনে এ কথা বলা হয়েছে। এতে বাংলাদেশে মানুষের বাক স্বাধীনতা ও গনমাধ্যমের স্বাধীনতা খর্ব হয়েছে বলে উল্লেখ করা হয়েছে।

গোটা বিশ্ব মানবাধিকার লংঘনের নিক্তিতে ভেনিজুয়েলা এবং চীনের অবস্থা সবচেয়ে খারাপ। যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র বিভাগের বার্ষিক মানবাধিকার প্রতিবেদনে এ কথা বলা হয়েছে। এতে বাংলাদেশে মানুষের বাক স্বাধীনতা ও গনমাধ্যমের স্বাধীনতা খর্ব হয়েছে বলে উল্লেখ করা হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ের বার্ষিক মানবাধিকার প্রতিবেদনে বিশ্বের মানবাধিকার লংঘনের শীর্ষ তালিকায় ভেনিজুয়েলা এবং চীনের নাম। প্রতিবেদন প্রকাশকালে পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও ভেনিজুয়েলায় মানবাধিকার লংঘনের কয়েকটি বিষয় তুলে ধরেন।

তিনি বলেন দেশটিতে বিচার বহির্ভুত হত্যাকান্ড, মানুষের মত প্রকাশের স্বাধীনতা এবং রাজনীতিতে মানুষের অংশগ্রহনকে কঠৌরভাবে দমন করে মানবাধিকার লংঘন করা হচ্ছে। একইভাবে চীনেরও নানা প্রকার মানবাধিকার লংঘনের কথা তুলে ধরেন তিনি।

মাইক পম্পেও বলেন, “মানবাধিকার লংঘনের প্রশ্নে চীনের অবস্থা উদ্বেগজনক। ২০১৮ সালে চীনে উইঘোর নামক সংখ্যালঘূ মুসলিম সম্প্রদায়ের রেকর্ড সংখ্যক মানুষকে গ্রেফতার করা হয়। এখন ১০ লক্ষেরও বেশী উইঘোর, কাজাখ জাতিগোষ্ঠি এবং অন্যান্য মুসলিম সম্প্রদায়ের লোকজনকে তাদের শিবিরে নিয়ে নির্যাতন করে তাদের ধর্মীয় ও জাতীগত পরিচয় মুছে ফেলার চেষ্টা করা হচ্ছে। এছাড়া খ্রীষ্টান, তিব্বতীয়সহ যে কেউ সরকারের বিরুদ্ধে ভিন্নমত পোষণ করছেন তাদেরকে গ্রেফতার ও নির্যাতন করা হচ্ছে”।

এছাড়া মাইক পম্পেও ইরান ও নিকারাগুয়ায় মানবাধিকার লংঘনের কথা তুলে ধরেন। ১৯৭৭ সাল থেকে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র বিভাগ এই রিপোর্ট প্রকাশ করে আসছে।

এতে সৌদী আরবের মানবাধিকার লংঘনের কথা উল্লেখ করে নিন্দা জানানো হয়েছে। গত বছর ইস্তাম্বুলে সৌদী কন্সুলেটে ওয়াশিংটন পোস্ট কলামিস্ট জামাল খাশোগজি হত্যাকান্ডের কথা তুলে ধরে বলা হয় এটি নিন্দনিয়।

মানবাধিকার বিষয়ক বিশ্লেষক, Bureau of Democracy, Human Rights & Labor এর Ambassador Michael Kozak বলেন, “ভেনিজুয়েলায় মানবাধিকার লংঘনের অবস্থা ভীষণ খারাপ। এই রিপোর্টে তা দারুনভাবে উঠে এসেছে। আর এটিতো গতবাবের তথ্য উপাত্ত দিয়ে করা। এখন অবস্থা আরো খারাপ হয়েছে”।

সৌদী আরবের মানবাধিকার অবস্থার কথা বলতে গিয়ে সাংবাদিক জামাল খাশোগজি হত্যাকান্ডে ক্রাউন প্রিন্স মোহামেদ বিন সালমানের সম্পৃক্ততার কথা প্রসঙ্গে মন্তব্য করতে গিয়ে পররাষ্ট্র বিভাগের কর্মকর্তা মিশেল কোজাখ বলেন যুক্তরাষ্ট্র সৌদী আরবের ওপর চাপ অব্যহত রেখেছে ওই হত্যাকান্ডের মূল অপরাধিকে খুঁজে বের করার জন্য।

রাষ্ট্রদূত কোজাখ বলেন, “সেই ঘটনার তদন্ত এখনো শেষ হয়নি; চলছে। আমরা ওই চলচ্চিত্রের মাঝখানে আছি। এবং আশা করি শেষ হবে এবং সত্য উদঘাটিত হবে”।

মাইক পম্পেও বলেন যুক্তরাষ্ট্র মানবাধিকার রিপোর্ট করতে গিয়ে শত্রু মিথ্যা পৃথক করেনা। সকলের প্রকৃত অবস্থা তুলে ধরা হয়, “আমাদের মূল লক্ষ্য হচ্ছে মানবাধিকারের প্রকৃত অবস্থা তুলে ধরা এবং যেসব দেশে মানাবাধিকার লংঘনের অবস্থা বেশী খারাপ সেখানে তাদেরকে তা ভালো করার পরামর্শ দেয়া”।

ইরানী মানবাধিকার আইনজীবি নাসরিন সোতোদেহ’র বিষয়টিও প্রতিবেদনে উঠে আসে। গত বছল জুনমাসে তাকে গ্রেফতার করা হয় এবং ৩৮ বছরের জেল দেয়া হয়, ১৪৮ চাবুক মারা হয়।

State Department কর্মকর্তা Robert Palladino, বলেন, “ওই রায় বর্বরতাকেও হার মানায়। ইরানী নারীদের অধিকারের পক্ষে কথা বলায় এবং বিভিন্ন ইরানী নারীর স্বার্থে কাজ করার অপরাধে তাকে গ্রেফতার ও সাজা দেয়া হয়। হিজার আইনের বিরুদ্ধে কথা বলায় তার ওই পরিনতি”।

বাংলাদেশের যে বিষয়গুলো ওই রিপোর্টে উঠে আসে তার মধ্যে বাংলাদেশের ৩০শে ডিসেম্বরের নির্বাচনের অনিয়ম, মানুষের বাক স্বাধীনতা হরণ, গনমাধ্যমের স্বাধীনতা হরণ, বিরোধী দলের ওপর গ্রেফতার ও নির্যাতন, গুম, বিচার বহির্ভত হত্যাকান্ড ইত্যাদি। এসবের প্রেক্ষিতে বাংলাদেশর প্রকৃত মানবাধিকার অবস্থা জানতে এখন কথা বলছি ড. শাহদীন মালিকের সঙ্গে।

XS
SM
MD
LG