অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে পরিবেশগত ক্ষতির পরিমাণ নিরূপণে কমিটি করেছে বাংলাদেশ


A general view of Nayapara Rohingya refugee camp in Cox's Bazar, Bangladesh, Aug.22, 2019.

রোহিঙ্গাদের জন্য পরিবেশগত ক্ষয়ক্ষতি ২ হাজার ৪০০ কোটি টাকা ছাড়িয়ে যাবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

কক্সবাজারে অনুষ্ঠিত হয় ‘পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটি’র ৮ম বৈঠক এবং সেখানেই এই মতামত প্রকাশ করা হয়।

রিপোর্ট পাঠিয়েছেন কক্সবাজার থেকে মোয়াজ্জেম হোসাইন সাকিল।

please wait

No media source currently available

0:00 0:01:02 0:00

একাদশ জাতীয় সংসদের ‘পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটি’র ৮ম বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে কক্সবাজারে। শুক্রবার কক্সবাজার জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে কমিটির বৈঠকে সভাপতি সাবের হোসেন চৌধুরী বলেন, রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিতে গিয়ে পরিবেশ, বন এবং জীব-বৈচিত্রের যে ক্ষতি হয়েছে তা অপূরণীয়। তাই নতুন করে আর ক্ষতি হতে দেওয়া হবে না। বিশেষজ্ঞ দিয়ে ক্ষতির মাত্রা নির্ধারণ করে, তা পুনরুদ্ধারের পরিকল্পনা নেওয়া হবে। বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের সাথে কথা বলেন “পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটি”র সভাপতি সাবের হোসেন চৌধুরী।

রোহিঙ্গাদের জন্য প্রায় ১০ হাজার গভীর নলকুপ থেকে প্রতিদিন পানি উত্তোলন করায় পানির স্তর নিচে নেমে যাচ্ছে। এতে বিভিন্ন স্থানে পানি সংকট প্রকট হচ্ছে; ভবিষ্যতে ভয়াবহ পরিস্থিতি সৃষ্টি হতে পারে। তাই ভূ-গর্ভস্থ পানি উত্তোলন না করে ভূমির উপরিভাগের পানি ব্যবহারের কৌশল গ্রহণের কথা বলেন সাবের হোসেন চৌধুরী।
বৈঠকে পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক মন্ত্রী মো: শাহাব উদ্দিন বলেন, নতুন করে পাহাড় কাটা, বন নিধনসহ নানাভাবে পরিবেশ ধ্বংস করা হলে- কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে। কক্সবাজারের পরিবেশ রক্ষায় দ্রুত রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন প্রত্যাশা করেন তিনি।
বৈঠকে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে কি পরিমাণ ক্ষতি হয়েছে তা নিরূপণের জন্য একটি কমিটি গঠন করা হয়। রোহিঙ্গাদের জন্য পরিবেশগত ক্ষয়ক্ষতি ২ হাজার ৪০০ কোটি টাকা ছাড়িয়ে যাবে বলেও ধারণা করা হয় ৮ম সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভায়।

XS
SM
MD
LG