অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

বাংলাদেশে অনুষ্ঠিত হল ফ্লাওয়ার ফেস্টিভাল ২০১৭


ফুল শুভ্রতা, শান্তি ও ভালবাসার প্রতীক। গায়ে হলুদ, বিয়ে, জন্মদিন, বিশেষ দিনগুলো যেন ফুল ছাড়া ভাবাই যায় না। ফুল ভালোবাসে না এমন মানুষ পৃথিবীতে বিরল।শনিবার শেষ হয়ে গেল ৩ দিন ব্যাপি 'ফ্লাওয়ার ফেস্ট ২০১৭'। ইনভেশন অ্যান্ড ইনকিউভেসন সেন্টার ফর এন্টারপ্রাইজেস (IICU) ও বাংলাদেশ ফ্লাওয়ার সোসাইটির আয়োজনে এ মেলায় সহযোগিতা করেছে, ইউএসএআইডি(USAID), শের-ই-বাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশ ফটোগ্রাফি সোসাইটি ও দেশী ফুল ডটকম।

এ মেলায় ১৪ টি প্যাভিলিয়ন ও ৩৩ টি প্রদর্শনী স্টল ছিল। মেলায় অংশগ্রহন করেছে ফুল উৎপাদক, ফুলের পাইকারী ও খুচরা ব্যাবসায়ী, ফুল সেক্টরের সংশ্লিষ্ট সংগঠন ও রূপসজ্জা বিষয়ক প্রতিষ্ঠান। মেলায় এক হাজারের বেশী ফুলের প্রদর্শনী হয়েছে।

ফ্লাওয়ার ফেস্টিভালে ভিন্নতাও চোখে পরে। এখানে ব্রাইডাল স্টলের বিউটি এক্সপার্ট বলেছেন, বিয়ের কনেকে ফুল দিয়ে সাঁজালে দেখতে অপুরুপ লাগে। এই মেলায় ফুলের গহনা বানানোর উপর প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছে।

মেলায় কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি স্টলে ড. আ ফ ম জামালউদ্দিনের নন্দিনী নামের একটি ফুলের চারা উৎপাদনের ফুল ও দেখতে পাওয়া যায়। যার ইংরেজি নাম লিসিয়েনথাস (Lisianthas)।

ইউএসএআইডির (USAID) এ.ভি.সি প্রজেক্টের সাব্রিনা হক ফুল ব্যাবসায়ীদের সাথে তারা কীভাবে কাজ করেন তা তুলে ধরেন।মেলায় আগত দর্শনার্থীরা বলেন, এমন মেলার যেন সব সময় আয়োজন করা হয়। এ নিয়ে বাংলাদেশ ফ্লাওয়ার সোসাইটির সভাপতি আব্দুর রহিম বলেন, ফুলের ব্যাবসায় যেমন অপার সম্ভাবনা আছে তেমনি অনেক সমস্যা ও আছে। মেলায় ইউএসএআইডির পক্ষ থেকে সিসিমপুর নামে একটি স্টল ছিল যেখানে শিশুদের জন্য নানান রকমের বই রাখা হয়েছিল যা দেখে শিশুরা অনেক আনন্দিত হয়। সরকারের সহযোগিতা আর ব্যাবসায়ীদের কঠোর পরিশ্রমে একদিন বাংলাদেশ বিশ্বের কাছে ফুলের দেশ হিসেবে পরিচিতি পাবে তেমনটিই আশা ফুল ব্যাবসায়ীদের।

please wait

No media source currently available

0:00 0:07:59 0:00

XS
SM
MD
LG