অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

হেফাজতের অব্যাহত দাবির মুখে সুপ্রিমকোর্ট প্রাঙ্গণ থেকে দেবী থেমিসের ভাস্কর্য সরিয়ে ফেলা হয়েছে


হেফাজতের অব্যাহত দাবির মুখে সুপ্রিমকোর্ট প্রাঙ্গণ থেকে গ্রীক ন্যায় বিচারের দেবী থেমিসের ভাস্কর্যটি সরিয়ে ফেলা হয়েছে। গত রাতে কতিপয় শ্রমিক ভাস্কর্যটি সরিয়ে নেয়। এই ভাস্কর্য নিয়ে বেশ কিছুদিন যাবত সরকার ও সুপ্রিম কোর্টের মধ্যে টানাপোড়েন চলছিল। গণভবনে হেফাজতের সঙ্গে বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী ভাস্কর্যটি সরানোর পক্ষে মত দেন। প্রধানমন্ত্রী এ নিয়ে কথাও বলেন প্রধান বিচারপতি এসকে সিনহার সঙ্গে। এরপরও বিষয়টি ঝুলে ছিল। কিন্তু চাপ বাড়ছিল নানা দিক থেকে। বৃহস্পতিবার প্রধান বিচারপতি সিনিয়র আইনজীবীদের সঙ্গে বৈঠকে মিলিত হন। আইনজীবীরা মূর্তিটি সরানোর পক্ষে যুক্তি তুলে ধরেন। বিচারপতিদের সঙ্গেও কথা বলেন এসকে সিনহা। সবার মতামত নিয়ে রাতে ভাস্কর্যটি সরানোর উদ্যোগ নেয়া হয়। হেফাজতসহ ইসলামী দলগুলো ভাস্কর্য সরানোয় আনন্দ মিছিল করেছে। হেফাজতে ইসলামীর নেতারা দেশের সব জায়গা থেকে মূর্তি সরানোর দাবি জানান। ভাস্কর মৃণাল হক এটাকে দুঃখজনক বলে মন্তব্য করেছেন। বলেছেন, আমরা কবে মানুষ হবো। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন সরকার নয়, সুপ্রিমকোর্টই ভাস্কর্যটি সরিয়েছে। অধ্যাপক জাফর ইকবাল বলেছেন, আমরা এ কোন বাংলাদেশ দেখছি?

এডভোকেট সুলতানা কামাল এটাকে আপোসকামিতার রাজনীতি বলে বর্ণনা করেছেন। আওয়ামী লীগ যে মৌলবাদীদের সঙ্গে যুক্ত হয়েছে তার একটা অংশ হিসেবে এটা হলো। প্রবীণ সাংবাদিক কামাল লোহানী বলেছেন, এটা লজ্জা ও উদ্বেগের বিষয়। আমরা কোন পথে চলেছি?

ওদিকে ভাস্কর্য সরানোর প্রতিবাদে ছাত্র ইউনিয়ন, ছাত্রফ্রন্টসহ কয়েকটি ছাত্র সংগঠন রাজধানীতে বিক্ষোভ মিছিল বের করে। ছাত্র-জনতার প্রতিবাদÑ এই ব্যানারে সুপ্রিমকোর্ট অভিমুখে মিছিল নিয়ে যাওয়ার সময় পুলিশ তাদের ওপর কাঁদানে গ্যাস ও জলকামান ব্যবহার করে। এতে কয়েকজন বিক্ষোভকারী আহত হন। ছাত্র ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক লিটন নন্দীসহ ৪ জনকে আটক করে। সন্ধ্যায় মূর্তি সরানোর প্রতিবাদে গণজাগরণ মঞ্চ শাহবাগে মশাল মিছিল বের করে।

XS
SM
MD
LG