অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

অবৈধ অভিবাসন বন্ধ করে রাজনৈতিক মতানৈক্য দূর করার আহবান প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের


যুক্তরাষ্ট্রের অভিবাসন পদ্ধতি সংস্কার করে অবৈধ অভিবাসন বন্ধ করে রাজনৈতিক মতানৈক্য দূর করে সমৃদ্ধ যুক্তরাষ্ট্র গঠণের আহবানের মধ্যে দিয়ে প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প মঙ্গলবার কংগ্রেসের যৌথ অধিবেশনে ভাষণ দিলেন।

যুক্তরাষ্ট্রের অভিবাসন পদ্ধতি সংস্কার করে অবৈধ অভিবাসন বন্ধ করে রাজনৈতিক মতানৈক্য দূর করে সমৃদ্ধ যুক্তরাষ্ট্র গঠণের আহবানের মধ্যে দিয়ে প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প মঙ্গলবার কংগ্রেসের যৌথ অধিবেশনে ভাষণ দিলেন।

​ভাষণের শুরুতেই প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প বলেন তাঁর আজকের ভাষণ রিপাবলিকান বা ডেমোক্রেটিক দলের জন্য নয়, আমেরিকান জনগনের উদ্দেশ্যে। তিনি বলেন যুক্তরাষ্ট্র দুই দলের দ্বারা নয়, এক জাতী হিসাবে পরিচালিত হবে। বলেন, “কোনো দলের জন্য জেতাটা বিজয় নয়; দেশের জন্যে বিজয় হচ।ছে আসল বিজয়”।

ভাষনের সময় কংগ্রেসে উপস্থিত দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের তিন যোদ্ধাকে পরিচয় করান প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। তিনি পরিচয় করান ৫০ বছর আগে চাঁদে অবতরণকারী নভোচারী বাজ অলড্রিনকে।

প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প বলেন, “বিংশ শতাব্দীর আমেরিকা মানুষের স্বাধীনতা নিশ্চিত করেছে, বিজ্ঞানের প্রসার ঘটিয়েছে, এবং মধ্যবিত্ত শ্রেনীর জীবন মান উন্নত করেছে। গোটা বিশ্ব তা জেনেছে। এখন আমাদেরকে সাহসের সঙ্গে শক্তভাবে সমৃদ্ধ আমেরিকা গঠনের নতুন অধ্যায় রচনায় মনোনিবেশ করতে হবে। একাবিংশ শতাব্দীর জন্য জীবন মানের এক নতুন মানদন্ড সৃষ্টি করতে হবে”।

তিনি বলেন, “একসঙ্গে বসে আমরা দশকের পর দশক ধরে চলা রাজনৈতিক মতানৈক্য দূর করতে পারি। পূর্বের বিভক্তি আমরা দূর করতে পারি। আগের ক্ষত আমরা মুছে ফেলতে পারি। নতুন জোট করতে পারি। নতুন সমাধান খুঁজতে পারি”।

তিনি বলেন, জ্বালানী খাতে আমরা নতুন বিপ্লব সৃষ্টি করেছি। তেল ও প্রাকৃতিক গ্যাস উত্পাদনে যুক্তরাষ্ট্র গোটা বিশ্বের এক নম্বর অবস্থানে।

প্রেসিডেন্ট বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি ইর্ষনীয়। আমাদের সেনা বাহিনী সারা বিশ্বের সবচেয়ে শক্তিশালী সেনাবাহিনী। প্রতিদিনই বিজয় লাভ করছে যুক্তরাষ্ট্র।

তিনি বলেন, অভিবাসন পদ্ধতি সংস্কার করা আমাদের নৈতিক দায়িত্ব। এর মাধ্যমে আমেরিকানদের জীবন ও চাকুরীর নিশ্চয়তা নিশ্চিত হবে।

যুক্তরাষ্ট্রের কর্মী বাহিনী ও রাজনীতিকদের মধ্যেকার বিভক্তির অন্যতম প্রধান একটি কারন হচ্ছে অবৈধ অভিবাসি। মেক্সিকো যুক্তরাষ্ট্র সীমান্তে দেয়াল নির্মান করে সে সমস্যার সমাধারন করা সম্ভব।

দেয়াল নির্মাণ বিষয়ে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প যখন বলেন “আমি এটা নির্মান করাবো” তখন রিপাবলিকান সমর্থকরা দাড়িয়ে উল্লাস করেন। ডেমোক্রেটিক দলের সমর্থকেরা সীটে বসে থাকেন। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প বলেন, “দেয়াল যদি উচু হয়, অবৈধ সীমান্ত পারাপার কমে যায়”। বলেন এই দেয়াল হবে একটি ইস্পাতের বেড়া; কংক্রিটের দেয়াল নয়।

তিনি বলেন শক্তিশালী সীমান্ত বাধার কারনে অবৈধ সীমান্ত পারাপার কমেছে এবং সানদিয়াগো ও এল পাসোর মানুষের জীবন নিরাপদ হয়েছে।

প্রেসিডেন্ট বলেন আমেরিকান কর্মক্ষেত্রে অধিক সংখ্যক নারী যুক্ত হয়েছেন; কংগ্রেসে বিপুল সংখ্যক নারী নির্বাচিত হয়েছেন, আজকের এই অধিবেসনকে তারা আলোকিত করেছেন।

তিনি বলেন উন্নয়নশীল দেশের নারীদের অর্থনৈতিকভাবে ক্ষমতায়ন করার লক্ষ্যে ট্রাম্প প্রশাসনের পক্ষ থেকে বিশেষ প্রয়াস নেয়া হচ্ছে।

বানিজ্য নীতি শক্তিশালী করার কথা উল্লেখ করে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প বলেন, চীন বহু বছর ধরে আমাদের বুদ্ধিবৃত্তিক সম্পদ চুরি করেছে, আমেরিকান চাকরীর বাজার দখল করেছে, আর তা বন্ধ করার সময় এসেছে। তিনি বলেন চীনের কাছে ২৫০ বিলিয়ন ডলারের ওপর শুল্ক আরোপের ফলে যুক্তরাষ্ট্রের কোটি কোটি ডলার আয় হচ্ছে যা আগে কখনো হয়নি।

প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প যৌথ সভায় দেয়া ভাষণে ছয়টি বিষয়ে গুরুত্ব দেন।

অর্থনীতিকে তার প্রশাসনের সময় সফল বলে তুলে ধরেন।

সীমান্ত দেয়াল তোলার গুরুত্ব তুলে ধরেন।

অবকাঠামো উন্নয়নে ১.৫ ট্রিলিয়ন বা ১ লক্ষ ৫০ কোটি ডলার খরচের খাতের কথা বলেন।

২০৩০ সাল নাগাদ এইডস দুরীকরনে প্রয়াস নেয়ার কথা বলেন।

স্বাস্থ্যসেবা সংস্কারের কথা বলেন।

উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে যুদ্ধ না করে তাদেরকে পারমানবিক অস্ত্রমুক্ত করার সাফল্যের কথা বলেন।

XS
SM
MD
LG