অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

নিহতদের মরদেহ প্রত্যর্পনের প্রক্রিয়া শুরু করেছেন ক্রাইস্টচার্চ কর্তৃপক্ষ


নিউজিল্যান্ডে, ক্রাইস্টচার্চ কতৃপক্ষ- গত শুক্রবারের বেধড়ক –গণ গুলিবর্ষন ঘটনায় নিহতদের মরদেহ প্রত্যর্পনের প্রক্রিয়া শুরূ ক’রেছেন এখন। ভিন্ন ভিন্ন দু’টি মসজিদে শ্বেতাঙ্গ এক বর্ণবাদী-বর্ণশ্রেষ্ঠত্বের দাবিদার ঐ গণ গুলিবর্ষনে লিপ্ত হয়েছিলো।

পুলিশসূত্রে বলা হ‘চ্ছে- নিহত সকলেরই শবদেহ পরিক্ষার পর কেবল বারোজনকেই সঠিকভাবে সনাক্ত করা গিয়েছে এবং ছ‘ জনের মরদেহ আত্মীয় পরিজনের কাছে হস্তান্তর করা হ’য়েছে। ক্রাইসচার্চ পুলিশ বিভাগ থেকে বলা হ’চ্ছে-হস্তান্তরণ প্রক্রিয়া যতোখানি সহজ সরল ব’লেই প্রতিয়মান হোকনা কেন – আসলে কিন্তু বাস্তাবে তা অনেকখানিই জটীল- বিশেষ ক’রে বর্তমান ঘটনার পরিস্থিতির বাস্তবতার নিরিখে। নিহতদের নামধাম সাধারন্যে প্রকাশ করা হয়নি – যদিও, নামধামের প্রাথমিক একটা তালিকা আত্মীয় পরিজনের কাছে তুলে ধরা হয়েছে।

আত্মীয় পরিজনের ব্যাথাতুর অবস্থার কথা বিবেচনায় নিয়েই তাঁদেরকে অপেক্ষা ক’রতে বলা ছাড়া বিশেষ কোনো গত্যন্তর নেই- অথচ ইসলামী ধর্মাচার মোতাবেক, মরদেহ যতো সত্বর সম্ভব দাফন সম্পন্ন করা কর্তব্য –গোসল করিয়ে, কাফন পরিয়ে মুর্দা চব্বিশ ঘন্টার ভেতরেই কবরস্থ করা বাঞ্ছনীয়।জনা ষাইট স্বেচ্ছাসেবী পৌঁচেছেন অস্ট্রেলিয়া থেকে – তাঁরাই অন্যদের সঙ্গে মিলে গোসল-কাফন-দাফনসহ মরদেহ কবরস্থ করার প্রক্রিয়া সম্পন্ন ক’রছেন। ইতিমধ্যে, মঙ্গলবার সংষদে, ভাবাবেগ আপ্লুত ভাষনে প্রধানমন্ত্রী র্জাসিন্ডা অর্ডার্ণ সংশ্লিষ্ট বন্দুকধারীর উল্লেখে বলেন – ওটা একটা সন্ত্রাসী-তস্কর-উগ্রপন্থী – কিন্তু আমি তার নামটাও মুখে আনতে চাইনা – আমি সানুনয় আকুতি জানাচ্ছি—যাঁরা হারিয়ে গেলেন নামোল্লেখ করুন তাঁদের – যে কেড়ে নিলো এ জীবনগুলো তার নাম নয়।

XS
SM
MD
LG