অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

কক্সবাজারে করোনা ভাইরাস সনাক্তের পরীক্ষা চালু


বাংলাদেশের কক্সবাজারে চালু হয়েছে করোনা ভাইরাস সনাক্তের পরীক্ষা। কক্সবাজার মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সদ্য চালু হওয়া এই ল্যাবে এখনো পর্যন্ত ৩ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। তাদের সবারই রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে। কক্সবাজারের একমাত্র কোভিড-১৯ আক্রান্ত রোগীর পরীক্ষাও নেগেটিভ পাওয়া গেছে। এখন থেকে সন্দেহভাজনদের নমুনা এই পরীক্ষাগারে পরীক্ষা করা হবে বলে জানিয়েছেন কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ কামাল হোসেন।

বিশ্বের সর্ববৃহৎ এবং ঘনবসতিপূর্ণ রোহিঙ্গা ক্যাম্পের কাছে ভাইরাস সনাক্তের পরীক্ষা চালু হওয়াকে গুরুত্বের সাথে দেখছেন আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়। জাতিসংঘের নেতৃত্বাধীন ইন্টারনেক্টর কো-অর্ডিনেশন গ্রুপ সংক্ষেপে আইএসসিজি’র মুখপাত্র জানান, এটা শরণার্থী এবং দেশী-বিদেশী সবার জন্য গুরুত্বপূর্ণ ছিল।
কক্সবাজারের রোহিঙ্গা ক্যাম্পে এখনও কোন করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ঘটেনি বলে জানিয়েছে কক্সবাজারের সিভিল সার্জন ডাঃ মোহাম্মদ মাহবুবুর রহমান। তবে ভারত এবং অস্ট্রেলিয়া থেকে আসা কয়েক জন রোহিঙ্গাকে আইসোলেশনে রাখা হয়েছে। কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ কামাল হোসেন জানিয়েছেন, রোহিঙ্গা ক্যাম্পের ঘনবসতিপূর্ণ হওয়ায় সেখানে সেল্ফ আইসোলেশনে রাখার সুযোগ নেই। তাই তাদেরকে ক্যাম্পের বাইরে প্রাতিষ্ঠানিক আইসোলেশনে রাখা হচ্ছে।
এদিকে করোনা ভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে সচেনতা বাড়ানো হয়েছে। ক্যাম্পে যাতে বাহির থেকে কেউ যেতে না পারে, সেজন্য নজরদারি বাড়ানো হয়েছে। জেলা প্রশাসক জানিয়েছেন, এই প্রক্রিয়াগুলো চলমান থাকবে।
সচেতনতামূলক কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলোও। আইএসসিজি’র মুখপাত্র সৈকত বিশ্বাস জানিয়েছেন, রোহিঙ্গাদের সচেতন করতে নানা ধরণের কর্মসূচি চালানো হচ্ছে শরণার্থী শিবিরগুলোতে।
এদিকে স্থানীয়দের মাঝে ত্রাণ সহায়তা চালাচ্ছেন স্থানীয় প্রশাসন। মানুষকে ঘরে রাখতে ভূমিকা রাখার পাশাপাশি ত্রাণ বিতরণ করেছেন সেনা বাহিনীর সদস্যরা।
এদিকে কক্সবাজারে প্রথম এবং একমাত্র করোনা ভাইরাস পজেটিভ পাওয়া রোগীর রিপোর্ট নেগেটিভ পাওয়ার পর তার আত্মীয় স্বজনদের রিপোটও নেগেটিভ এসেছে। ওই রোগীর সংস্পর্ষে আশা চিকিৎসকদের নমুনা পরীক্ষাও নেগেটিভ রিপোর্ট পাওয়া গেছে। কক্সবাজারের সিভিল সার্জন জানিয়েছেন, এখন কক্সবাজারে আর কোন করোনা রোগী নেই। এখন থেকে যাদের শরীরে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ সন্দেহ হবে, কক্সবাজারের ল্যাবেই তাদের নমুনা পরীক্ষা করা হবে।
XS
SM
MD
LG