অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

আফগানিস্তান সীমান্ত থেকে চালানো গুলিতে পাঁচ পাকিস্তানী সৈন্য নিহত


পাকিস্তানের কুররাম অঞ্চলের মানাতু পার্বত্য এলাকায় আফগানিস্তান সীমান্তের কাছে অবস্থানরত পাকিস্তানের সেনারা, ছবি/এ মজিদ/এএফপি

পাকিস্তানের সাথে আফগানিস্তানের সীমান্তের অপরপাশ থেকে জঙ্গীরা গুলি চালালে, পাকিস্তানের পাঁচজন সৈন্য নিহত হয় বলে পাকিস্তানের সামরিক বাহিনী রবিবার জানিয়েছে।

পাকিস্তানের সীমান্তবর্তী কুররাম জেলায় আক্রমণের ঘটনাটি সংঘটিত হয়েছে বলে, সামরিক বাহিনীর গণমাধ্যম শাখা, ইন্টার সার্ভিসেস পাবলিক রিলেশনস (আইএসপিআর) এক বিবৃতিতে জানায়। ধারণা করা হচ্ছে যে এই ঘটনাটি সাম্প্রতিক বছরগুলোতে হওয়া সবচেয়ে মারাত্মক এমন ঘটনাগুলোর মধ্যে একটি।

বিবৃতিতে বলা হয় যে পাকিস্তানি সৈন্যরা হামলার পাল্টা জবাব দেয় এবং হামলাকারীদের “ব্যাপক হতাহত” করতে সক্ষম হয়। তবে এ বিষয়ে আর বিস্তারিত কিছু জানানো হয়নি।

গত আগস্টে আফগানিস্তানে ইসলামীপন্থী তালিবান ক্ষমতা দখলের পর থেকে পাকিস্তানে জঙ্গী হামলা বৃদ্ধি পেয়েছে। সে সময় থেকে পাকিস্তানের প্রতিবেশী এই দেশটিতে যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বে দুই দশক ধরে থাকা পশ্চিমা সেনাদের উপস্থিতির অবসান ঘটেছিল।


রবিবারের হামলার পিছনে কারা দায়ী বলে তারা মনে করেন, সে বিষয়ে পাকিস্তানী সামরিক বাহিনী কিছু জানায়নি। কর্মকর্তারা অনেকদিন ধরেই বলে আসছেন যে, তেহরিক-ই-তালিবান পাকিস্তান বা টিটিপি নামে পরিচিত, নিষিদ্ধ ঘোষিত পাকিস্তানী তালিবানের নেতা ও যোদ্ধারা আফগানিস্তানে নিরাপদ আশ্রয় গ্রহণ করেছে। নিরাপত্তা অভিযান চালানোর ফলে পাকিস্তানের সীমান্তবর্তী জেলাগুলোতে লুকিয়ে থাকা এই জঙ্গীরা আফগানিস্তানে পালিয়ে যায় এবং সেখান থেকেই তারা সন্ত্রাসী কর্মকান্ড পরিচালনা করছে।

অনেকেই মনে করেন যে যখন যুক্তরাষ্ট্র সমর্থিত কাবুল সরকার ও বিদেশী সেনাদের বিরুদ্ধে আফগানিস্তানের তালিবান একটি মারাত্মক বিদ্রোহী অভিযান পরিচালনা করছিল, তখন তারা পাকিস্তানে টিটিপি নিয়ন্ত্রিত এলাকায় আশ্রয় নিয়েছিল এবং পাকিস্তানি তালিবান থেকে যোদ্ধা সংগ্রহ করত।

যুক্তরাষ্ট্র এবং আফগানিস্তানের কর্মকর্তারা পাকিস্তানের সামরিক বাহিনীর বিরুদ্ধে গোপনে আফগানিস্তানে বিদ্রোহী কর্মকান্ড সমর্থনের বিষয়ে লাগাতার অভিযোগ করেছেন। ইসলামাবাদ সেই অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করেছিল।

তালিবান শাসকরা আন্তঃরাষ্ট্রীয় গোষ্ঠীগুলোকে আফগানিস্তানের ভূখন্ড ব্যবহার করে অন্য দেশের বিরুদ্ধে হামলা চালাতে না দেওয়ার অঙ্গীকার করেছিল। তবে সমালোচকরা বলছেন যে এই ইসলামী গোষ্ঠীটি তাদের প্রতিশ্রুতি রক্ষা করছে না।

XS
SM
MD
LG