অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

জরুরি অবস্থায়  আটক বন্দীদের মুক্তির আহ্বান জানিয়েছে ইথোপিয়ার অধিকার গোষ্ঠী


উত্তর ইথিওপিয়ার টিগ্রায় অঞ্চলে সরকারি বাহিনীর সদস্যরা পাহার দিচ্ছেন। (ছবি- এপি)

ইথিওপিয়ার আইন প্রণেতারা মঙ্গলবার নভেম্বর মাস থেকে জারি করা জরুরি অবস্থা প্রত্যাহারের পক্ষে ভোট দিয়েছেন। টিগ্রায় অঞ্চল থেকে রাজধানীর দিকে সৈন্যদের অগ্রসর হওয়ার হুমকির প্রেক্ষিতে জরুরি অবস্থা জারি করা হয়েছিল। ডিসেম্বর মাসের শেষের দিকে টিগ্রায়ের বাহিনীকে অবশ্য টিগ্রায় তে ফিরিয়ে আনা হয় তবে পর্যবেক্ষকরা বলছেন যে যুদ্ধরত দলগুলি প্রকৃতপক্ষে যুদ্ধংদেহী অবস্থায় রয়েছে। জরুরি অবস্থা প্রত্যাহার করা হলেও ইথিওপিয়ারসরকার জরুরি আইনের অধীনে যে হাজার হাজার বেসামরিক লোকজনকে আটক করেছিল তাদের এখনো মুক্তি দেয়নি। ইথিওপিয়ান সরকার যথাযথ আইনি প্রক্রিয়া ছাড়াই তাদের আটক রেখেছে।

দেশটির রাষ্ট্রীয় মানবাধিকার কমিশন ছয় মাসের জরুরি অবস্থার অবসানের জন্য ইথিওপিয়ার সংসদের সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছে। তবে গত তিন মাস ধরে যাদের কারারুদ্ধ রাখা হয়েছে রাষ্ট্রীয় অধিকার সংস্থার কর্মকর্তারা সেই বিষয়টি সমাধানের জন্য আরও প্রচেষ্টা নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছে।

কমিশনের তদন্ত পরিচালক মিসগানাও মুলুগেটা কর্তৃপক্ষকে ব্যবস্থা গ্রহণের আহ্বান জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, "বেশ কয়েকটি ঘটনা আমরা নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করছি কিন্তু গত কয়েক মাসে সারা দেশের আটক সন্দেহভাজনদের সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য আমাদের কাছে নেই। আমাদের কাছে যে প্রমাণ রয়েছে তা হলো এমন অনেক লোক রয়েছে যারা জরুরি অবস্থার কারণে হাজতে রয়েছে। মিসগানাও বলেন, “এটা যদি তুলে নেওয়া হয় তাহলে তাদের মুক্তি দেয়া উচিত বা নিয়মিত যথাযথ প্রক্রিয়ার মাধ্যমে তাদের বিষয়ে পর্যালোচনা করা উচিত।"

হিউম্যান রাইটস ওয়াচ এবং অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের মতোআন্তর্জাতিক অধিকার সংগঠনগুলির মতে, জরুরি অবস্থার অধীনে অনেক বেসামরিক নাগরিককে নির্বিচারে যে আটক করা হয়েছে তাদের বেশিরভাগই জাতিগোষ্ঠিগত ভাবে টিগ্রায়ের লোক এবং টিগ্রায়ের আঞ্চলিক নেতৃত্বকে সমর্থন করার অভিযোগে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়। এডভোকেসি গ্রুপগুলো বলছে, রাজধানী আদ্দিস আবাবা ও অন্যান্য শহরগুলোতে বসবাসরত জাতিগোষ্ঠীগত টিগ্রায়ানদের বিরুদ্ধে গুম, নির্যাতন, বিচার বহির্ভূত মৃত্যুদণ্ড এবং নানা ধরণের অত্যাচার করার জন্য এই আইনটি ব্যবহার করা হয়েছে।

XS
SM
MD
LG