অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

তালিবানের স্বীকৃতির ব্যাপারটি বিবেচনার জন্য “এটি উপযুক্ত সময় নয়”: যুক্তরাষ্ট্র


তালিবান মুখপাত্র জাবিহুল্লাহ মুজাহিদ (মাঝে) কাবুলে একটি সংবাদ সম্মেলনের সময় কথা বলছেন। ৩০ জুন, ২০২২। ফাইল ছবি।

যুক্তরাষ্ট্র বলেছে, যদিও বিদ্রোহী থেকে পরিণত-ইসলামি গোষ্ঠীটির আগামী মাসে কাবুলে ক্ষমতায় ফিরে আসার এক বছর পূর্ণ হলেও কোনো বিদেশী সরকার আফগানিস্তানে তালিবান শাসনের বৈধতা দেয়া নিয়ে চিন্তা করছে না।

যুক্তরাষ্ট্রের দক্ষিণ ও মধ্য এশিয়া বিষয়ক সহকারী পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডোনাল্ড লু এক সাক্ষাৎকারে ভয়েস অফ আমেরিকাকে বলেছেন, “আমি মনে করি মস্কো,বেইজিং এবং ইরানসহ একটি বৈশ্বিক ঐকমত্য রয়েছে যে, স্বীকৃতির জন্য এখনই উপযুক্ত সময় নয়।”

দুই দশকের বৈদেশিক হস্তক্ষেপ সমাপ্ত করে যুক্তরাষ্ট্র ও নেটো অংশীদাররা নিজেদেরকে আফগানিস্তান থেকে প্রত্যাহার করার পর গত বছরের আগস্টে তালিবান আফগানিস্তানের ক্ষমতা দখল করে নেয়।

ওয়াশিংটন বারবার স্পষ্ট করে বলেছে, যতক্ষণ না তালিবান নারীদের ওপর জারি করা নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করে নেয় এবং অন্যান্য জাতিগত আফগান গোষ্ঠীর প্রতিনিধিদের সরকারে অন্তর্ভুক্ত করে ততক্ষণ পর্যন্ত তাদের কোনো বৈধতা দেয়া সম্ভব নয়।

তালিবান তাদের সরকারকে আফগানিস্তানের ইসলামিক আমিরাত বলে। তারা নারীদের ওপর আরোপিত নিষেধাজ্ঞা এবং অন্যান্য নীতির পক্ষ নিয়ে বলেছে সেগুলো আফগান সংস্কৃতি এবং শারিয়া, ইসলামি আইনের সাথে কঠোরভাবে সঙ্গতিপূর্ণ। অন্যান্য মুসলিম দেশের পন্ডিত ব্যক্তিরা এই দাবির সাথে একমত নন।

চীন ও পাকিস্তানসহ আফগানিস্তানের প্রতিবেশী ও আঞ্চলিক দেশগুলো তালিবান সরকারের সাথে তাদের কূটনৈতিক এবং বাণিজ্যিক যোগাযোগ চালু রেখেছে।

কিন্তু এই দেশগুলোও রাজনৈতিকভাবে অন্তর্ভুক্তিমূলক প্রশাসনের মাধ্যমে দেশ শাসন করার জন্য ইসলামপন্থী গোষ্ঠীটিকে চাপ দিচ্ছে।

XS
SM
MD
LG