অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

কর্তৃপক্ষীয় সিদ্ধান্তহীনতা, এককেন্দ্রীকতা এবং জরুরি ব্যবস্থা গ্রহণে বিলম্ব করোনা সংক্রমণের উচ্চহারের কারণ


করোনা সংক্রমণের উচ্চহারে ক্রমবর্ধমান বিস্তার প্রতিরোধে সীমাহীন কর্তৃপক্ষীয় সিদ্ধান্তহীনতা, চিকিৎসা ও পরীক্ষা ব্যবস্থার ক্ষেত্রে এককেন্দ্রীকতা এবং জরুরি ব্যবস্থা গ্রহণে বিলম্ব দেশব্যাপী উচ্চহারে করোনা ছড়িয়ে পড়ার জন্য প্রধানতম কারণ বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞগণ। ঘোষণা দেওয়া হলেও গত দশ দিনেও ঢাকার উচ্চ ঝুঁকিপূর্ণ ৪৫টি এলাকাকে রেড জোন ঘোষণা করে লকডাউনের আওতায় আনা হয়নি। বলা হচ্ছে- এখনও প্রস্তুতিপর্ব চলছে।

ম্যাপিং নিয়ে চলছে নানা কথা। দেশের ১৯টি করোনা সংক্রমণের উচ্চ ঝুঁকিপূর্ণ জেলার কিছু এলাকায় লকডাউন নয়, সাধারণ ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে। করোনা সংক্রমণের পরীক্ষা বা টেস্টের ক্ষেত্রে বাংলাদেশ এই অঞ্চলের মধ্যে পিছিয়ে থাকারও শেষের দিকে। বাংলাদেশ সরকারের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের কারিগরি পরামর্শক কমিটি গত এপ্রিলে গড়ে প্রতিদিন কমপক্ষে ৩০ হাজার জনের পরীক্ষার কথা বলেছিল। অথচ কখনোই তা মানা হয়নি এবং এখনও হচ্ছে না। ওই পরামর্শ দেয়া হয়েছিল কম সংক্রমণের সময়।

এখন নতুন পরিবর্তিত বাস্তবতায় প্রতিদিনের পরীক্ষার সংখ্যা আরও অনেক বাড়ানো উচিত বলে মনে করছেন সরকারি সংস্থা

আইইডিসিআর-এর ঊর্ধ্বতন বিজ্ঞানী ও উপদেষ্টা ডা. মোশতাক হোসেন।
গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৩৭ জন। এ নিয়ে এ পর্যন্ত মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১ হাজার ৫৮২ জনে। ২৪ ঘণ্টায় নতুন শনাক্ত হয়েছেন ৩ হাজার ৪৬২ জন। এ পর্যন্ত মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১ লাখ ২২ হাজার ৬৬০ জন।


XS
SM
MD
LG