অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

কোভিড হাসপাতাল কমানোর সিদ্ধান্ত প্রশাসনিক, বিশেষজ্ঞরা পরামর্শ দেননি


চারদিকে যখন করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের আতঙ্ক ঠিক তখনই বাংলাদেশে করোনা রোগীদের চিকিৎসায় নিয়োজিত হাসপাতালগুলি কমিয়ে দেয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে। যদিও করোনা সংক্রান্ত জাতীয় টেকনিক্যাল কমিটি কিম্বা পরামর্শক কমিটির কেউই এ ব্যাপারে পরামর্শ দেননি। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, প্রসাশনিক সিদ্ধান্ত দিয়ে মহামারি নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা হচ্ছে। যা কিনা দুনিয়ায় বিরল। স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক মনে করেন, বাংলাদেশে আতঙ্ক তেমন নেই। যে কারণে রোগীরা হাসপাতালে যাচ্ছেন না। তার দেয়া তথ্য অনুযায়ী দেখা যায় ঢাকায় ২২ টি করোনা রোগীদের চিকিৎসায় নিয়োজিত হাসপাতালের সাত হাজার ৫২ টি বেডের মধ্যে চার হাজার ৮২১ টি বেড খালি রয়েছে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বাংলাদেশে রোগী কমেছে এটা কি করে বলা যাবে। প্রতিদিনই যেখানে সংক্রমণ বাড়ছে। টেস্ট বাড়ানো হলে রোগীর সংখ্যাও লাফ দিয়ে বেড়ে যাবে। জাতীয় পরামর্শক কমিটির একজন সদস্য নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ভাইরাস রাজনৈতিক বক্তব্য বুঝেনা। এটা বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতেই মোকাবিলা করতে হবে। জাতীয় টেকনিক্যাল কমিটির অন্যতম সদস্য অধ্যাপক নজরুল ইসলাম বলেছেন, তাদের কাছ থেকে কোন পরামর্শ নেয়া হয়নি এবং তারা কোন পরামর্শও দেননি। অপর জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ ও মিডিয়া ব্যক্তিত্ব ডা. আব্দুন নূর তুষারের মতে বিশ্ব পরিস্থিতি কি দাঁড়ায় তা দেখতে হবে। হুট করে হাসপাতাল বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নেয়াটা আত্মঘাতী হতে পারে।

ওদিকে করোনায় মৃত্যুর মিছিল এখনো থামেনি। ২৪ ঘণ্টায় আরও ৩৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। শনাক্ত হয়েছেন দুই হাজার ৭৬৬ জন। সবমিলিয়ে আক্রান্ত হয়েছেন দুই লাখ ৭১ হাজার ৮৮১ জন। সুস্থ হয়েছেন এক লাখ ৬৬ হাজার ৬২৩ জন।

please wait

No media source currently available

0:00 0:01:28 0:00


XS
SM
MD
LG