অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

নিজেদের গবেষণার ফলাফল ভুল বলছে স্বাস্থ্য দপ্তর


নিজেদের তৈরি করা একটি আন্তর্জাতিক গবেষণার ফলাফল উল্টে দিল বাংলাদেশের স্বাস্থ্য দপ্তর। মাত্র দু'দিন আগে তারাই এক সাংবাদিক বৈঠকে বলেছিল, গবেষণায় তথ্য মিলেছে। রাজধানী ঢাকায় ৪৫ শতাংশ মানুষের শরীরে করোনার এন্টিবডি পাওয়া গেছে। যে অনুষ্ঠানে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেকও সংযুক্ত হয়েছিলেন। স্বাস্থ্য দপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক মীরজাদি সেব্রিনা ফ্লোরা নিজেই এই গবেষণার ফলাফল জানিয়েছিলেন। এসময় ইউএসএআইডির একজন প্রতিনিধি উপস্থিত ছিলেন। ইউএসএআইডি ও বিল অ্যান্ড মেলিন্ডা ফাউন্ডেশনের অর্থায়নে এই গবেষণাটি করেছিল সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান এবং আইসিডিডিআর,বি। এই গবেষণার ফলাফল প্রকাশের পর প্রশ্ন ওঠে সরকারের তরফে দেয়া দু'রকম তথ্য নিয়ে। গবেষণায় বলা হয়েছে, ঢাকা শহরের প্রায় অর্ধেক মানুষ ইতিমধ্যেই আক্রান্ত হয়ে গেছে। অথচ প্রতিদিন যে স্বাস্থ্য বুলেটিন দেয়া হয় তাতে এর কোনো প্রতিফলন নেই। আক্রান্তের সংখ্যা চার লাখের মধ্যেই সীমাবদ্ধ রয়েছে। এই যখন অবস্থা তখন মঙ্গলবার গভীর রাতে স্বাস্থ্য দপ্তরের পরিচালক অধ্যাপক তাহমিনা শিরিন এক বিজ্ঞপ্তিতে তাদের গবেষণার ফলাফল নিয়ে প্রশ্ন তুলেন। বলেন, গবেষণায় নমুনা পরীক্ষার সংখ্যা কম ছিল। এত কম সংখ্যক নমুনা ঢাকা শহরের প্রতিনিধিত্ব করে না। এই বক্তব্যের পরদিন স্বাস্থ্য বুলেটিনে কিছু মিল খুঁজে পাওয়া যায়। সর্বশেষ ২৪ ঘণ্টায় করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ১৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। যা বিগত ১৩৮ দিনের মধ্যে সবচেয়ে কম প্রাণহানি। এর আগে ২৮শে মে স্বাস্থ্য দপ্তর করোনায় ১৫ জনের মৃত্যুর খবর দিয়েছিল। স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বলছেন, পুরো বিষয়টি এখন লেজে-গোবরে করে ফেলেছে তারা। অবস্থা এমনই নিজেদের সমীক্ষাকেই অবলীলায় ভুল বলছে। জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ ডা. আব্দুন নূর তুষার বলেছেন, একটি স্পর্শকাতর ইস্যু নিয়ে রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠানের তামাশায় জনগণ বিচলিত। তারা কি একবারও ভেবে দেখেনি এন্টিবডি তৈরি হয়ে গেছে বলার মধ্যে কি বিপদ রয়েছে? এখন যদি মানুষ স্বাস্থ্যবিধি না মেনে অবাধে চলাফেরা শুরু করে দেয় তখন করোনা রুখবে কে? তাছাড়া প্রধানমন্ত্রী যেখানে দ্বিতীয় ঢেউ আসার আগে সবাইকে সতর্ক থাকতে বলছেন ঠিক তখন স্বাস্থ্য দপ্তর বিপরীত চিত্রই তুলে ধরছে।

please wait

No media source currently available

0:00 0:01:57 0:00
সরাসরি লিংক


XS
SM
MD
LG