অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

রোহিঙ্গা ডাটা শেয়ার প্রসঙ্গে হিউম্যান রাইটস ওয়াচের বক্তব্যের সঙ্গে একমত নয় ঢাকা


রোহিঙ্গাদের না জানিয়ে মিয়ানমারকে ডাটা শেয়ারের বিষয়ে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে হিউম্যান রাইটস ওয়াচ যে অভিযোগ করেছে তা আমলে নিতে নারাজ ঢাকা। এ বিষয়ে অনানুষ্ঠানিক প্রতিক্রিয়ায় সরকারের দায়িত্বশীল প্রতিনিধিরা পাল্টা অভিযোগ করে বলেন, হিউম্যান রাইটস ওয়াচ একটা নন-ইস্যুকে ইস্যু বানানোর চেষ্টা করছে। তাছাড়া ওই ডেটাবেজের দায়িত্বে থাকা জাতিসংঘের শরনার্থী সংস্থা ইউএনএইচসিআর তো আনুষ্ঠানিক প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছে। মানবিক কারণে আশ্রয় দেয়া রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনের পূর্ব শর্ত হিসাবে ভেরিফাইয়ের জন্য ওই ডাটা শেয়ার করা হয়েছে দাবি করে সরকারী এক কর্মকর্তা বলেন, ডাটা শেয়ার না করলে তারা ভেরিফাই করবে কিভাবে?

হিউম্যান রাইট ওয়াচ বলছে, রোহিঙ্গারা জানতেন তাদের বিষয়ে যে ডাটা নেয়া হচ্ছে তা বাংলাদেশ সরকারের জন্য। পূর্ব সম্মতি না নিয়ে তাদের সব তথ্য মিয়ানমারের হাতে তুলে দেয়া হয়েছে, যা রোহিঙ্গাদের জন্য উদ্বেগজনক। বিষয়টির তদন্তও দাবি করেছে আন্তর্জাতিক ওই মানবাধিকার সংগঠন।

সংগঠনের ক্রাইসিস এবং কনফ্লিক্ট ডিরেক্টর লামা ফাকিহ বলেন, রোহিঙ্গাদের ডাটা সংগ্রহের চর্চা জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক এজেন্সির নিজস্ব নীতিবিরুদ্ধ কাজ। এর ফলে শরণার্থীদেরকে আরো ঝুঁকিতে ফেলে দেয়া হয়েছে।

তবে এ অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করে ইউএনএইচসিআর-এর মুখপাত্র আন্দ্রেঁজ মাহেসিক তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় বলেন, বিশ্বে শরণার্থীদের ডাটা সংগ্রহ, রেজিস্ট্রেশন এবং এটি সুরক্ষিত রাখার নীতি অনুসরণ করে জাতিসংঘ।

স্মরণ করা যায়, ২০১৭ সালে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর নৃশংসতা থেকে প্রাণে বাঁচতে রোহিঙ্গারা বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়। ওই বর্বরতাকে জাতিসংঘ গণহত্যা বলে অভিহিত করেছে।

XS
SM
MD
LG