অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

মিয়ানমারে হত্যা ও বাস্তুচ্যুতির ঘটনা ঘটতে থাকায় যুক্তরাষ্ট্র উদ্বেগমুক্ত হতে পারছে না


Rohingya camp

মিয়ানমারের নিরাপত্তা বাহিনী রোহিঙ্গা নারী, পুরুষ ও শিশুদের ওপর তিন বছর আগে যে নৃশংস হামলা চালিয়েছিল যুক্তরাষ্ট্র সরকার সেই হামলার ভুক্তভোগীদের জন্য ন্যায়বিচার ও দোষীদের জবাবদিহিতার আওতায় আনার দাবী পুনর্ব্যক্ত করেছে।

ঢাকায় যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাসের এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তরের মুখপাত্র মরগান অর্টাগাসের এ সংক্রান্ত একটি বিবৃতি প্রচার করেছে যেখানে তিনি বলেছেন রাখাইন রাজ্যে সংঘর্ষ বাড়ার প্রেক্ষাপটে সেখানে সহিংসতার অবসান, সংলাপ, স্থানীয় জনগণের সুরক্ষায় অব্যাহত প্রচেষ্টা এবং মিয়ানমারে মানবিক সহায়তার বাধামুক্ত প্রবেশের যুক্তরাষ্ট্র সরকারের দাবীর উল্লেখ করেছেন। মিয়ানমারে এখনো স্থানীয় বাসিন্দাদের হত্যা ও হাজার হাজার মানুষের বাস্তুচ্যুতির ঘটনা ঘটতে থাকায় যুক্তরাষ্ট্র উদ্বেগমুক্ত হতে পারছে না বলে উল্লেখ করে বিবৃতিতে বলা হয় এই ধরনের পরিস্থিতি শরণার্থী ও আভ্যন্তরীণ ভাবে বাস্তুচ্যুত মানুষদের স্বেচ্ছায় প্রত্যাবর্তনের সম্ভাবনা খর্ব করে এবং শান্তির সম্ভাবনা নষ্ট করে। এতে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া শরণার্থী ও আভ্যন্তরীণ ভাবে বাস্তুচ্যুত মানুষদের নিজ দেশে এবং ঘরে নিরাপদে, স্বেচ্ছায়, মর্যাদাপূর্ণ ও টেকসই প্রত্যাবর্তনের জন্য উপযুক্ত পরিবেশ তৈরি করতে মিয়ানমার সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে। রাখাইন রাজ্য বিষয়ে কফি আনানের নেতৃত্বে পরিচালিত এডভাইজরি কমিশনের দেয়া সুপারিশসমূহ বাস্তবায়নে জোরালো প্রচেষ্টা গ্রহণের বিষয়েও জোর দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।

দক্ষিণ মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যের রাজধানী সিত্তে করোনাভাইরাস আশঙ্কার মধ্যে লোকেরা রাস্তায় মাস্ক পরেছে কিনা সেদিকে নজর রাখছে পুলিশ
দক্ষিণ মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যের রাজধানী সিত্তে করোনাভাইরাস আশঙ্কার মধ্যে লোকেরা রাস্তায় মাস্ক পরেছে কিনা সেদিকে নজর রাখছে পুলিশ

বিবৃতিতে বলা হয় মিয়ানমার ও বাংলাদেশে সঙ্কটের ফলে ক্ষতিগ্রস্ত সকলের মানবিক দুর্ভোগ লাঘবে ২০১৭ সাল থেকে এ পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্র সরকার ৯৫.১ কোটি ডলারেরও বেশি অনুদান দিয়েছে। রোহিঙ্গা শরণার্থীকে আশ্রয় দেয়ার ক্ষেত্রে বাংলাদেশের অব্যাহত উদারতার আন্তরিক প্রশংসা করে বিবৃতিতে রোহিঙ্গাদের জন্য অব্যাহত মানবিক সহায়তা নিশ্চিত করার পাশাপাশি এই সংকট সমাধানে বিশ্বের অন্যান্য দেশের প্রতি প্রচেষ্টা জোরদার করার আহ্বান জানানো হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্র ভুক্তভোগীদের ন্যায়বিচার পাওয়া নিশ্চিত করতে ও নৃশংসতার জন্য দায়ীদের জবাবদিহিতার আওতায় আনতে যে সকল জোরাল পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে তার উল্লেখ করে বিবৃতিতে এই নৃশংসতার জন্য দায়ীদের শাস্তির বিষয়ে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের অব্যাহত দৃঢ় অঙ্গীকারের প্রশংসা করা হয়েছে। বিবৃতিতে অবশ্য বলা হয় সংকট সমাধানে আরো অনেক কিছু করার বাকি আছে।

সরাসরি লিংক


XS
SM
MD
LG