অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

চট্টগ্রামে ১৭ জন চীনা নাবিক ৭ দিন ধরে অবরুদ্ধ


বাংলাদেশের চট্টগ্রাম বন্দরের বহির্নোঙ্গরে ১৭ জন চীনা নাবিক এক সপ্তাহ ধরে জাহাজের ভেতর অবরুদ্ধ অবস্থায় রয়েছেন। তাদেরকে বাংলাদেশ ভিসা দিচ্ছে না। করোনা ভাইরাস নিয়েই যত সমস্যা। বাংলাদেশী কর্মকর্তারা বলছেন, তাদের কোন ভিসা নেই। চীনা নাগরিকদের জন্য অন-এরাইভেল ভিসা অনেক আগেই বন্ধ করে দিয়েছে সরকার। এই অবস্থায় তাদেরকে কত দিন অবরুদ্ধ থাকতে হবে তা নিশ্চিত নয়। এই নাবিকরা জানিয়েছেন, তারা ঢাকা হয়ে দেশে ফিরতে চান। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলছে, স্বরাষ্ট্র ও স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবে। চীনের তরফে ক্রমাগত যোগাযোগ রাখা হচ্ছে।

ওদিকে, করোনা ভাইরাসের কারণে চীনে আটকেপড়া বাংলাদেশীরা দেশে ফেরার জন্য আহাজারি করছেন। যে কোন মূল্যে তারা দেশে ফিরতে চান। বিশেষ করে উহানে ও ইচাং-এ আটকে পড়েছেন ৩৪৩ জন বাংলাদেশী। বাংলাদেশ সরকারের সিদ্ধান্ত হচ্ছে আর কোন বাংলাদেশীকে রাষ্ট্রীয় খরচে দেশে ফেরত আনা হবে না। পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আব্দুল মোমেন মঙ্গলবার সরকারের অবস্থান ব্যাখ্যা করেছেন। বলেছেন, ব্যক্তিগত খরচে যে কেউ দেশে ফিরতে পারেন। সরকারিভাবে আনা হবে না। এ মাসের গোড়ার দিকে সরকারিভাবে ৩১২ জনকে ফিরিয়ে আনা হয়েছে উহান থেকে। এরপর নানাবিধ সঙ্কটে পড়েছে রাষ্ট্রীয় বিমান সংস্থা। ঐ বিমানের পাইলট ও ক্রুরা অন্য কোন দেশে যেতে পারছেন না। এয়ারক্রাফটও গ্রাউন্ডেড অবস্থায় রয়েছে।

করোনা ভাইরাস ভারতে শনাক্ত হওয়ার প্রেক্ষাপটে সে দেশ থেকে ডিম আমদানি নিয়ে বেশ জটিলতা তৈরি হয়েছে। ১০ কোটি ডিম আমদানির একটি প্রস্তাব সরকার নাকচ করে দিয়েছে। মৎস্য ও প্রাণী সম্পদ প্রতিমন্ত্রী আশরাফ আলী খান খসরু জানিয়েছেন, এখন ডিম লাগবে না। পর্যাপ্ত উৎপাদন রয়েছে। প্রতিমন্ত্রী অবশ্য বলেন, চীন ও ভারতসহ করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত দেশ থেকে প্রাণী সম্পদ আমদানির ক্ষেত্রে কমপক্ষে ১৫ দিন কোয়ারেন্টাইনে রেখে ছাড়পত্র দেয়া হবে। সিঙ্গাপুরে ৯ জন বাংলাদেশী শ্রমিককে কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। শনাক্ত ১ জনকে মঙ্গলবার আইসিইউতে নেয়া হয়েছে।

please wait

No media source currently available

0:00 0:00:21 0:00



XS
SM
MD
LG