অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

বাংলাদেশে সংখ্যালঘুরা নির্যাতিত হয় না: পররাষ্ট্রমন্ত্রী আব্দুল মোমেন


ভারতের নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল নিয়ে বাংলাদেশ জুড়েই প্রতিক্রিয়া। ধর্মীয় সংখ্যালঘুরাও উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। বিরোধী বিএনপিসহ একাধিক রাজনৈতিক দল প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছে।

সরকারের তরফেও পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আব্দুল মোমেন সতর্ক প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন। তার মতে, ভারত ঐতিহাসিকভাবে একটি ধর্মনিরপেক্ষ রাষ্ট্র। সেখান থেকে পদস্খলন হলে দেশটির ঐতিহাসিক অবস্থান দুর্বল হয়ে যাবে। ঢাকাস্থ যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত আর্ল মিলারের সঙ্গে বৈঠকের পর ড. মোমেন সাংবাদিকদের বলেন, আমাদের সরকারের অনেক বড় বড় সিদ্ধান্ত নেয় অন্য ধর্মের লোক। আমরা তাদের বাংলাদেশের নাগরিক হিসেবে একই দৃষ্টিতে দেখি। কে কোন ধর্মের সেটা আমরা বিচার করি না। বৈঠকে রাষ্ট্রদূত মিলার বলেছেন, তারা ধর্মীয় স্বাধীনতায় বিশ্বাসী। ভারতে ধর্মভিত্তিক যে নাগরিকত্ব বিল পাস হয়েছে তাতে তাদের নিজের অবস্থানকেই দুর্বল করেছে।

নাগরিকত্ব বিল নিয়ে ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ যে বক্তব্য দিয়েছেন তার সঙ্গে দ্বিমত পোষণ করে ড. মোমেন বলেন, বাংলাদেশে ধর্মীয় সংখ্যালঘুরা এখনো নির্যাতিত হয় তা সঠিক নয়। বাংলাদেশে এখন ধর্ম যার যার, উৎসব সবার। এখানে সব ধর্মের প্রতি মানুষের শ্রদ্ধাবোধ রয়েছে।

মিয়ানমার নেত্রী অং সান সুচির সমালোচনা করে বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, তার আচরণে আমরা দুঃখ পেয়েছি। পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, রোহিঙ্গা গণহত্যার বিচারে আন্তর্জাতিক বিচার আদালতে গাম্বিয়া যে লড়াই করছে তা সত্যিই প্রশংসনীয়।

পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক শেষে যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত সাংবাদিকদের সামনে মিয়ানমারের সেনা প্রধানসহ ৪ শীর্ষ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের কঠোর নিষেধাজ্ঞা সম্বলিত ট্রেজারি বিবৃতি পাঠ করে শোনান। কোন প্রেক্ষাপটে যুক্তরাষ্ট্র এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে তা পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে অবহিত করেন।

please wait

No media source currently available

0:00 0:01:52 0:00
সরাসরি লিংক



XS
SM
MD
LG