অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

ভারতে অনেকেই করোনা সংক্রমণের উপসর্গ গোপন করছেন


ভারতে অনেকেই দেখা যাচ্ছে করোনা সংক্রমণের উপসর্গ দেখা দিলেও তা গোপন করে রাখছেন। ডাক্তারের কাছে না গিয়ে দোকান থেকে ওষুধ কিনে খেয়ে তাঁরা বাড়িতে বসে নিজেদের চিকিৎসা নিজেরাই চালিয়ে যাচ্ছেন। সেই কারণেই ওষুধের দোকানগুলোতে করোনা উপসর্গের ওষুধের বিক্রিতে নজরদারি বাড়াতে চলেছে বেশ কিছু রাজ্য। আজ তার মধ্যে যোগ দিয়েছে পশ্চিমবঙ্গও।

পশ্চিমবঙ্গ সরকারের তরফে ওষুধের দোকানদারদের চিঠি দিয়ে বলা হয়েছে, এমন কোন রোগীর যদি খোঁজ পাওয়া যায় যাঁরা জ্বর সর্দি হাঁচি বা শ্বাসকষ্টের ওষুধ অনেক বেশি করে এবং বেশিদিন ধরে কিনছেন, তবে সে দিকে নজর রাখতে হবে, তাঁদের নাম ঠিকানা ফোন নম্বর লিখে রাখতে হবে এবং সেই রোগীদের সমস্ত তথ্য সরকারকে জানাতে হবে। ইতিমধ্যেই তেলেঙ্গানা মহারাষ্ট্র ওড়িষা বিহার ও চণ্ডীগড় এই পথ নিয়েছে। বলা হয়েছে, যেসব রোগীর এই সমস্ত উপসর্গ রয়েছে বলে মনে হচ্ছে এবং ওষুধের দোকানগুলো তাঁদের এর ওষুধ দিচ্ছে, তাদের ঐ ওষুধ দেওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ফোন নম্বর ও বাড়ির ঠিকানা নিয়ে রাখতে হবে যাতে কেউ সংক্রমিত হলে পরে তাকে খুঁজে বার করা সম্ভব হয়। এইভাবে রাজ্যে করোনা ভাইরাস আক্রান্তের সংখ্যা নিয়ন্ত্রণে রাখা যাবে বলে রাজ্যের প্রশাসন মনে করছে।

সরকারি কর্তাদের বক্তব্য, অনেকেরই আবহাওয়া পরিবর্তনের জন্য সর্দি কাশি জ্বর ইত্যাদি হয়। তার মানেই যে করোনা এমনটা নয়, তবু যেহেতু এগুলোই করোনা সংক্রমনের প্রাথমিক উপসর্গ, তাই অনেকেই আতঙ্কিত হয়ে পড়েন। তবে দীর্ঘ সময় ধরে এই উপসর্গ চলতে থাকলে সেই রোগীদের পরীক্ষা করা দরকার। এই কারণেই ওষুধের দোকানগুলোকে ক্রেতাদের তথ্য রাখার নির্দেশ দেওয়া হচ্ছে। ওষুধের দোকান থেকে পাওয়া তথ্য নিয়ে যাতে দরকারে রোগীদের সঙ্গে দ্রুত সরাসরি যোগাযোগ করা যায়, সেটাই সরকারের উদ্দেশ্য।

XS
SM
MD
LG