অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

করোনার কারনে দুর্ভোগে নিম্ম আয়ের মানুষ: হাওর অঞ্চলে শ্রমিক পাঠাচ্ছে পুলিশ


বাংলাদেশে টানা এক মাসের লক লাউন পরিস্থিতে চরম দুর্ভোগে পড়েছে ভাসমান এবং নিম্মআয়ের মানুষ। আয় রোজগার কমে যাওয়া অনেকটা মানবেতর জীবন যাবন করতে হচ্ছে তাদের। নিম্মআয়ের এসব মানুষ যখনি কোথাও খাবারের খোঁজ পাচ্ছেন, সেখানেই ছুটে যান। রাস্তায় থাকা এসব অসহায় মানুষের কাছে খাওয়ার পৌঁছে দেয়ার উদ্যোগ নিয়েছে ইকো নামের একটি সামাজিক সংগঠনের একদল তরুন।

সামজিক দায়বদ্ধতা থেকে অসহায় এসব মানুষদের মুখে খাবার পৌঁছে দিচ্ছেন বলে জানান সংগঠনের সভাপতি সরোয়ার আলম চৌধুরী।

এদিকে রাস্তায় পড়ে থাকা ভসমান এসব অসহায় মানুষের মধ্যে প্রতিদিন ৩শÕ জনকে রান্না করা খাবার দেয়া হচ্ছে বলে জানান আরেক তরুণ উদ্যোক্তা ইউফুফ সোহেল। তিনি জানিয়েছেন, মানবিক কারনে আগামিতে প্রতিদিন ৫শ জনকে রান্না করা খাবার বিতরণ করা হবে।

এদিকে প্রধানমন্ত্রীর আহবানে সাড়া দিয়ে হাওর অঞ্চলে ধান কাটার জন্য চট্টগ্রাম থেকে দেড় হাজার শ্রমিক পাঠাচ্ছে চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশ। চট্টগ্রাম থেকে পাঠানো এসব শ্রমিক পুলিশ প্রশাসনের তত্ত্বাবধানে হাওর অঞ্চলে ধান কাটার কাজে যুক্ত হবেন। ধান কাটার জন্য পাঠানো এসব শ্রমিকদের ১৪দিন কোয়ারেন্টাইনে রাখার পর তাদের কৃষি কাজে সংযুক্ত করা হবে জানান চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশের উপ পুলিশ কমিশনার মেহেদী হাসান।

এদিকে ২৪ ঘন্টায় চট্টগ্রামে ১৪০ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ১০মাস বয়সী এক শিশুসহ চার জনের শরীরে কোভিড-১৯ পজেটিভ পাওয়া গেছে। আক্রান্ত শিশুটির বাড়ি চট্টগ্রামের চন্দনাইশ উপজেলায়। অন্য তিনজন পার্বত্য জেলা বান্দরবানের বাসিন্দা। বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ট্রপিক্যাল অ্যান্ড ইনফেকশাস ডিজিজেসে (বিআইটিআইডি) এ পর্যন্ত ১ হাজার ৭২০ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এর মধ্যে কোভিড-১৯ পজিটিভ পাওয়া গেছে ৭৫ জনের। মারা গেছেন পাঁচ জন। আক্রান্তদের মধ্যে চট্টগ্রাম জেলার বাসিন্দা ৪০ জন। এছাড়া লক্ষ্মীপুর জেলায় ২৬ জন, নোয়াখালীতে চার জন, বান্দরবানে তিন জন এবং ফেনীতে দুজন কোভিড-১৯ আক্রান্ত রোগী রয়েছেন।

XS
SM
MD
LG