অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

করোনাভাইরাস মোকাবিলায় মানবাধিকারের প্রতি লক্ষ্য রাখুন: জাতিসংঘ মহাসচিব


জাতিসংঘ মহাসচিব আন্তোনিও গুয়েতেরেস বলেছেন, করোনাভাইরাসের এই সংক্রমণ খুব দ্রুতই একটি মানবাধিকার সংকটে পরিণত হচ্ছে। আজ এক বিবৃতিতে তিনি সকল জনগণের স্বাস্থ্য পরিচর্যা প্রদান এবং এই পরিচর্যাকে তাদের নাগালের মধ্যে নিয়ে আসার জন্য বিভিন্ন দেশের সরকারের প্রতি আহ্বান জানান। তিনি আরে বলেন যে, সরকারগুলোকে এটা নিশ্চিত করতে হবে যে অর্থনৈতিক সহায়তার প্যাকেজ যেন সব চেয়ে দূর্গত লোকদের সাহায্য করতে পারে এবং সকলেই যাতে খাদ্য, পানি এবং বাসস্থান পেতে পারে।
তিনি বলেন, “আমরা দেখেছি এই সংক্রমণ মানুষে মানুষে ভেদাভেদ করে না কিন্তু এর প্রতিক্রিয়ায় তা করে। সেখানে জনসেবা বিতরণে বড় রকমের দুর্বলতা ধরা পড়ে এবং অবকাঠামোগত বৈষম্য থেকে যায়। যার ফলে দরিদ্রদের কাছে পৌঁছুনো বাধাপ্রাপ্ত হয়। আমাদেরকে এটা নিশ্চিত করতে হবে যে এই ব্যাধি মোকাবিলায় তাদের দিকে যেন দেখা হয়। গুয়েতেরেস বলেন, আমরা যাই করি না কেন আমাদের ভুলে গেলে চলবে না জনগণ নয়, ভাইরাসই হচ্ছে হুমকি।
জাতিসংঘ প্রধানের এই বার্তাটি এমন এক সময় এলো যখন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার কর্মকর্তারা সতর্ক করে দিচ্ছেন যে কোন কোন দেশে যখন এ ব্যাপারে বড় রকমের অগ্রগতি হয়েছে এবং তারা লকডাউন শিথিল করতে শুরু করছে, এই ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াইটা মোটেই শেষ হয়নি।
বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান টেড্রস অ্যাঢ্যনম গ্রেব্রিভিসাস বলেন, এ ব্যাপারে কোন ভুল করার অবকাশ নেই যে সামনে আমাদের অনেকখানি পথ এগুতে হবে, এই ভাইরাস আমাদের সঙ্গে দীর্ঘ সময় ধরেই থাকবে। তিনি বলেন অনেক দেশই এখনও এই মহামারির একেবারে প্রাথমিক পর্যায়ে রয়েছে এবং কোন কোন দেশে এই সংক্রমণ নতুন করে দেখা দিচ্ছে। যুক্তরাষ্ট্রের কর্মকর্তারা জনসাধারণকে ফ্লু মৌসুমের আগে ফ্লুর টিকা নিতে বলছেন। যুক্তরাষ্ট্রের স্বাস্থ্য নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধ সেন্টারের পরিচালক রবার্ট রেডফিল্ড সংবাদদাতাদের বলেন, আমাদেরকে ফ্লু এবং করোনাভাইরাসের মধ্যে পার্থক্যটাও বুঝতে হবে।

বাড়িতে থাকার বাধ্যকতা এখন আরো খানিকটা জটিল হয়ে দাঁড়িয়েছে কারণ এ সপ্তাহ থেকেই মুসলমানদের পবিত্র রমজান মাস শুরু হচ্ছে। ইন্দোনেশিয়ায় এই সময়ে ভ্রমণ করার উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে। রাজধানী জাকার্তায় এই লকডাউন ২২ শে মে পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে এবং মুসলমানদের মসজিদে যেতে বারণ করা হচ্ছে। তুরস্কের স্বাস্থ্য মন্ত্রীও বলেছেন বন্ধুদের সঙ্গে একত্রে ইফতার করার ঐতিহ্য ও এ বছর বাদ দিতে হবে। মালায়েশিয়ায়ও বাড়িতে বসে নামাজ পড়ার কথা বলা হয়েছে। তবে পাকিস্তান ভিন্ন পথ ধরেছে, সে দেশে চিকিৎসকদের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে মসজিদ খোলা রাখা হচ্ছে।

XS
SM
MD
LG