অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

চট্টগ্রাম ২৪ ঘন্টায় ১৮৪ জনের নমুনা পরীক্ষা, একজন করোনা রোগী শনাক্ত


বাংলাদেশে চট্টগ্রাম বিভাগের বিভিন্ন জেলার ১৮৪জনের নমুনা পরীক্ষা করে একজনের শরীরে কোভিড-১৯ পজেটিভ পাওয়া গেছে। তিনি চট্টগ্রাম বিভাগের লক্ষীপুর জেলার বাসিন্দা। চট্টগ্রামের ফৌজদারহাটে বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ট্রপিক্যাল এন্ড ইনফেকশাস ডিজিজেস- বিআইটিআইডি'তে গেল ২৪ ঘন্টায় এই ১৮৪ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। পর্যন্ত চট্টগ্রামের এই ল্যাবটিতে হাজার ৬৯ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এতে ৮০জনের শরীরে কোভিড-১৯ পজেটিভ পাওয়া গেছে। আক্রান্তদের মধ্যে চট্টগ্রাম জেলার ৪৩জন, লক্ষীপুরে ২৮জন, নোয়াখালীর ৪জন, বান্দরবানের ৩জন, ফেনীর ২জন আছে। এছাড়া মারা গেছে শিশুসহ ৫জন।

এদিকে কোভিড-১৯ আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসার জন্য ২৫০ শয্যার চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালে ভেন্টিলেটর, আইসিইউ সুবিধাসহ ১০টি বিশেষ বেড স্থাপন করার কথা জানিয়েছেন চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন ডা. সেক ফজলে রাব্বি।

করোনায় আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসার জন্য চট্টগ্রামের খুলশীতে একশো শয্যার আরো একটি হাসপাতাল নির্মাণ করা হচ্ছে বলে জানান চট্টগ্রামের বিভাগীয় স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. হাসান শাহরিয়ার কবির।

নভেল করোনা ভাইরাস শনাক্ত করণে চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি এনিম্যাল সাইন্সেস বিশ্ববিদ্যালয়ে স্থাপন করা হয়েছে আরো একটি ল্যাব। আগামীকাল শনিবার থেকে বিশ^বিদ্যালয়ের ল্যাবে ভাইরাস শনাক্ত করণের কার্যক্রম শুরু হবে। ল্যাবটি চালু হলে প্রতিদিন গড়ে দুইশো থেকে আড়াইশো পরীক্ষা করা যাবে বলে জানিয়েছে বিশ^বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। এছাড়া আগামি সাপ্তাহে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালেও কোভিড-১৯ শনাক্তের কার্যক্রম শুরু হবে জানিয়েছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

এদিকে টানা লকডাউন পরিস্থিতিতে চট্টগ্রাম বন্দরে আমদানী-রফতানী পণ্যবাহী কন্টেইনারের জট তৈরী হওয়ায় দ্রুত নিরসনে বন্দর সংশ্লিষ্টদের সাথে বৈঠক করেছেন নৌ পরিবহন মন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী। এসময় তিনি যে কোন পরিস্থিতিতে চট্টগ্রাম বন্দরকে সচল রাখার নির্দেশনা দেন।

এদিকে চট্টগ্রাম সার্কিট হাউজে অনুষ্ঠিত অপর এক সভায় তথ্যমন্ত্রী . হাছান মাহমুদ বলছেন, এক মাস ধরে দেশের সকল কর্মকান্ড বন্ধ থাকলেও পর্যন্ত একজন মানুষও না খেয়ে মারা যায়নি।

XS
SM
MD
LG