অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

সুন্দরবন সংলগ্ন রামপালে কয়লা ভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণ পরিবেশের উপর এক ভয়াবহ বিরূপ প্রভাব ফেলবে


নিউইর্কের সিরাকাস ইউনিভার্সিটির পরিবেশ প্রকৌশল বিভাগের অধ্যাপক এবং খ্যাতিমান পরিবেশ বিজ্ঞানী প্রফেসর চার্লস ড্রিসকল সদস্য প্রকাশিত এক গবেষণায় দেখিয়েছেন, সুন্দরবন সংলগ্ন রামপালে কয়লা ভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণ করা হলে, এতে ব্যবহৃত কয়লা থেকে যে বিশাল পরিমাণ পারদ বা মারকারী উৎপন্ন হবে- তাতে সুন্দরবনসহ পুরো অঞ্চলের জীব-বৈচিত্র্য সম্পূর্ণ বিনষ্ট হবে; মানবদেহ, জীবজন্তু, পাখ-পাখালী, মাছসহ সব কিছুর উপর এক ভয়াবহ বিরূপ প্রভাব ফেলবে। প্রফেসর চার্লস ড্রিসকল পারদকে জীবনবিনাশী বিষ হিসেবে উল্লেখ করে ওই গবেষণায় জাপানে সংঘটিত এমন একটি ঘটনার কথা জানিয়ে বলেন, পারদের কারণে জাপানের একটি এলাকার মানবদেহ এবং জীববৈচিত্র্যসহ সামগ্রিকভাবে এমন বিরূপ প্রভাব পড়েছিল-যা থেকে এখনো তারা পরিত্রাণ পাননি। প্রফেসর ড্রিসকলের ওই প্রতিবেদনটি সুন্দরবন রক্ষা জাতীয় কমিটি শনিবার ঢাকায় এক সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে প্রকাশ করে। ওই সংবাদ সম্মেলনে অনেক পরিবেশবাদী এবং বিশেষজ্ঞগণ উপস্থিত ছিলেন। তাদেরই একজন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূতত্ত্ব বিভাগের অধ্যাপক এবং বিশেষজ্ঞ প্রফেসর বদরুল ইমাম ভয়েস অব আমেরিকার জন্য বিশ্লেষণ করেছেন গবেষণা প্রতিবেদনটি সম্পর্কে।
পরিবেশ সক্রিয়বাদী এবং বিশেষজ্ঞগণ জীববৈচিত্র্য রক্ষার তাগিদেই সুন্দরবন সংলগ্ন রামপালে নির্মীয়মাণ বাংলাদেশ-ভারত যৌথ কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র থেকে বাংলাদেশ সরকারকে সরে দাড়ানোর জন্য পুনরায় আহবান জানিয়েছেন।

XS
SM
MD
LG