অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

করোনাভাইরাসের সংক্রমণে চীনকে টপকে গেল বাংলাদেশ


বাংলাদেশে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ জ্যামিতিক হারে বাড়ছে। ওয়ার্ল্ডোমিটারের তথ্য অনুযায়ী বাংলাদেশ সংক্রমণের দিক থেকে শীর্ষ ১০ এ পৌঁছে গেছে। গত ২৪ ঘণ্টায় ২৮৫৬ জন আক্রান্ত হয়েছেন। এই সময়ে মৃত্যুবরণ করেছেন ৪৪ জন। করোনায় আক্রান্তের হিসেবে চীনকে টপকে আরেক দফা উপরে উঠে গেছে বাংলাদেশ। চীনে প্রাদুর্ভাব শুরু হওয়ার তিন মাস পর বাংলাদেশে করোনা ভাইরাসের প্রথম রোগী ধরা পড়ে। চীনে আক্রান্ত হয়েছিলেন ৮৪ হাজার ২২৮ জন। বাংলাদেশে এ পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছেন ৮৪ হাজার ৩৭৯ জন। টেস্ট বাড়লে বাংলাদেশে আক্রান্তের সংখ্যা আরও বাড়বে বলে ধারণা দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। এখন প্রতি দশ লাখে মাত্র তিন হাজার মানুষের টেস্ট হচ্ছে।

দক্ষিণ এশিয়ায় বাংলাদেশের স্থান আফগানিস্থানের সামান্য উপরে। সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় নতুন করে সংক্রমিত এলাকাকে রেড জোন হিসেবে ঘোষণা করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার।এই সিদ্ধান্ত অনুযায়ী এসব এলাকায় সাধারণ ছুটি থাকবে। জনপ্রসাশন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন শনিবার দুপুরে গণমাধ্যমকে এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন। প্রতিমন্ত্রী জানান, আগামী দু’ একদিনের মধ্যেই সারাদেশে অধিক সংক্রমিত এলাকাগুলোকে চিহ্নিত করে রেড জোন ঘোষণা করা হবে। রাজধানীর ৪৯ টি এলাকাকে লকডাউন ঘোষণা করার কথা স্বাস্থ্য দপ্তরের কর্মকর্তারা আগেই জানিয়েছেন। একই দপ্তরের খবর, ঢাকাতেই এই মুহূর্তে ৪৯ হাজার ২১০ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছেন।

রাজধানীর পূর্ব রাজাবারকেকে লকডাউন ঘোষণার চারদিন পর হিসেবটা পাল্টে গেছে। প্রথমে বলা হয়েছিল সেখানে ৫০ থেকে ৭০ হাজার মানুষ বসবাস করেন। এরমধ্যে ৩৭ জন করোনায় আক্রান্ত। শুক্রবার ১৮ জনের নমুনা পরীক্ষার পর চার জনের শরীরে করোনার হদিস মিলেছে। এরপর স্বাস্থ্যদপ্তর নড়ে চড়ে বসেছে।

ওদিকে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও চারজন চিকিৎসক মারা গেছেন। সবমিলিয়ে ৩১ জন চিকিৎসকের মৃত্যু হলো করোনা ভাইরাসে। মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক করোনায় আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে। একই সঙ্গে তার স্ত্রী ও একান্ত সচিব আক্রান্ত হয়েছেন।

please wait

No media source currently available

0:00 0:02:00 0:00
সরাসরি লিংক


XS
SM
MD
LG