অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

বিদেশী খেদাও অভিযান : খালি পা, কাজের পোশাকে সৌদি আরব থেকে ফিরলেন ১৭৫ কর্মী


সৌদি আরবে বিদেশী খেদাও অভিযান চলছে। আর এই অভিযানে বাংলাদেশীরাও শিকার হচ্ছেন। গত রাতে ১৭৫ জন বাংলাদেশী কর্মী দেশে ফিরেছেন। সৌদি এয়ারলাইন্সের একটি বিমানে করে এদেরকে ঢাকায় নিয়ে আসা হয়। এদের কেউ ফিরেছেন খালি পায়ে, কেউ ফিরেছেন কর্মস্থলের পোশাকে। কেউ ফিরেছেন একদম নিঃস্ব হয়ে। বেশির ভাগই ছিলেন জেলখানায়। আকামা থাকা সত্ত্বেও অনেককেই জেলখানায় নেয়া হয়েছে বলে দেশে ফেরত কর্মীরা অভিযোগ করেছেন। তাদের অভিযোগ, আকামা নতুন করে নবায়নও করা হয়নি। আকামা বাতিল করার ঘটনাও ঘটেছে।

এ সম্পর্কে সৌদি প্রেস এজেন্সি এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, আবাসন আইন অমান্য করায় গত দু’বছরে ৩৮ লাখ বিদেশীকে আটক করা হয়েছে। গত জুন থেকে ৫ লাখ ৪৪ হাজার ৫২১ জন বিদেশীকে আটক করা হয়। ২০১৭ সালের নভেম্বর থেকে ৯ লাখ ৪০ হাজার ১০০ বিদেশীকে তাদের নিজ নিজ দেশে ফেরত পাঠানো হয়েছে। প্রায় ২০ লাখ বাংলাদেশী দেশটিতে কাজ করছেন। বিদেশী খেদাও অভিযানের পর বাংলাদেশীদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়েছে। অনেকেই পালিয়ে বেড়াচ্ছেন। গত রাতে ফিরেছেন মেহেরপুরের সেলিম রেজা। বৈধ কাগজ ছিল। তারপরও রেহাই পাননি। সেলিম রেজা এই সংবাদদাতাকে বলেন, কেমন ছিলাম জানতে চাইছেন? কি বলবো, ১৮ দিন জেলে ছিলাম।
একেবারে খালি হাতে দেশে ফেরা কর্মীদের ব্র্যাক মাইগ্রেশন প্রোগ্রাম বিমানবন্দরে খাবার সরবরাহ করছে। তাদেরকে নিরাপদে বাড়ি পাঠাচ্ছে। ব্র্যাক কর্মকর্তা আল-আমিন নয়ন জানান, গত ৬ মাসে সৌদি আরব থেকেই প্রায় ১০ হাজার পুরুষ কর্মী ফিরেছেন।

XS
SM
MD
LG