অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র নীতিতে জলবায়ু সর্বাগ্রে প্রাধান্য পাবে


এই সপ্তাহে ‘হোয়াইট হাউজ লিডারস সামিট অন ক্লাইমেট’ শীর্ষক শীর্ষ সম্মেলনের আগে যুক্তরাষ্ট্র পুনরায় নিশ্চিত করেছে যে তারা তাদের পররাষ্ট্র নীতিতে জলবায়ু পরিবর্তনের বিরূপ প্রভাবের বিরুদ্ধে লড়াইকে অগ্রাধিকার দেবে কারণ তারা আশা করে যে গ্রীন এনার্জী বা পুনর ব্যাবহারযোগ্য জ্বালানির ব্যবহার ব্যাপক থেকে ব্যাপকতর হবে।

সোমবার, পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিংকেন শতর্ক করেছেন যে আমেরিকা পুনর ব্যবহারযোগ্য জ্বালানির উদ্ভাবন ও বিকাশের ক্ষেত্রে যুক্তরাষ্ট্র চীনের থেকে পিছিয়ে রয়েছে।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিংকেন বলেন, "নবায়নযোগ্য জ্বালানির ক্ষেত্রে যে বিপ্লব ঘটতে চলেছে তার নেতৃত্ব দিতে আমরা ব্যার্থ হলে চীনের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্র দীর্ঘমেয়াদী কৌশলগত প্রতিযোগিতায় জয়ী হবে তা কল্পনা করাও কঠিন হবে। এখনই আমরা পিছিয়ে আছি। চীন সোলার বা সৌর প্যানেল, উইন্ড টারবাইন, ব্যাটারি, বিদ্যুৎ চালিত গাড়ির উৎপাদন এবং রপ্তানির ক্ষেত্রে সবচাইতে এগিয়ে আছে। বিশ্বের নবায়নযোগ্য জ্বালানির প্রায় এক তৃতীয়াংশ পেটেন্ট বা স্বত্বাধিকার চীনের। আমরা যদি খুব শীঘ্রই এর কাছাকাছি পৌঁছুতে না পারি তবে আমেরিকা বিশ্ব জলবায়ুর ভবিষ্যত রূপরেখা তৈরির সুযোগ হারাবে এবং তা আমাদের স্বার্থ এবং মূল্যবোধের প্রতিফলন বলেই বিবেচ্য হবে। আর আমেরিকান জনগণের জন্য অগণিত চাকরি আমরা হারাব।”

ব্লিংকেন ম্যারিল্যান্ডের রাজধানী এনাপলিসে চেসেপিক বে ফাউন্ডেশনে এই বক্তব্য রাখলেন যখন বিশ্ব নেতৃবৃন্দ জলবায়ু পরিবর্তণের বিরূপ প্রভাব নিয়ে সহযোগিতার বিষয়ে আলোচনা করতে যাচ্ছেন তার মাত্র ৩দিন আগে।

কূটনৈতিক সূত্র জানিয়েছে যে এই সপ্তাহের জলবায়ু শীর্ষ সম্মেলনে চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংকে প্রধান বক্তা হিসেবে বক্তব্য রাখার জন্য আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে।

১৭ এপ্রিল জলবায়ু বিষয়ক যুক্তরাষ্ট্রের বিশেষ দূত জন কেরি চীনা কর্মকর্তাদের সাথে বৈঠক শেষে যুক্তরাষ্ট্র ও চীন জরুরি ভিত্তিতে জলবায়ু নিয়ন্ত্রণে ব্যবস্থা গ্রহণের অঙ্গীকার জানিয়ে এক যৌথ বিবৃতি জারি করে।

মন্তব্যগুলো দেখুন

XS
SM
MD
LG