অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

আড়াই বছর পর ঢাকায় বিএনপির সমাবেশ


আড়াই বছর পর রাজধানীতে অল্প সময়ের নোটিশে জনসভা করার সুযোগ পেয়েছে বিএনপি। পুলিশ অবশ্য অনুমতি দেয়ার আগে ২৩টি শর্ত জুড়ে দিয়েছিল। দুই ঘণ্টার এই সমাবেশটি হয় নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে স্থাপিত অস্থায়ী এক মঞ্চে। এই সমাবেশে বিপুল লোক সমাগম হয়। খালেদা জিয়ার মুক্তি ও সুচিকিৎসার দাবিতে আয়োজিত এই সমাবেশে দলটির কেন্দ্রীয় নেতারা বক্তব্য রাখেন। গত ৮ই ফেব্রুয়ারি থেকে সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া এক দুর্নীতি মামলায় আটক রয়েছেন। সমাবেশে বিএনপি নেতারা সরকারের কড়া সমালোচনা করেন। বলেন, দেশে গণতন্ত্র নেই। সুশাসন নেই। মানবাধিকার ভুলুণ্ঠিত। নির্বাচনের কোন পরিবেশ নেই। কোটা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলনরত ছাত্রদের ওপর সীমাহীন জুলুম-নির্যাতন চলছে। খালেদা জিয়াকে এক মিথ্যা মামলায় আটক রাখা হয়েছে। বিএনপি নেতারা বলেন, খালেদাকে ছাড়া নির্বাচন নয়। এই সরকার এবং নির্বাচন কমিশনের অধীনে অবাধ ও নিরপেক্ষ নির্বাচন হতে পারে না। তারা বলেন, আইনী পথে খালেদা মুক্ত হবেন বলে মনে হয় না। আন্দোলনের মাধ্যমেই তাকে মুক্ত করতে হবে। দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সভাপতির ভাষণে বলেন, সরকার খালেদাকে ভয় পায় বলেই তাকে আটকে রেখেছে। তিনি বলেন, ক্ষমতা নয় অধিকার আদায়ের আন্দোলন করবে বিএনপি।পুলিশের দেয়া শর্তের মধ্যে ছিল রাস্তা বন্ধ করে সমাবেশ না করা, মিছিল করে সমাবেশস্থলে যাওয়া-না যাওয়া, নির্ধারিত স্থানের বাইরে মাইক ব্যবহার না করা, উস্কানিমূলক বক্তব্য বা প্রচারপত্র বিলি না করা এবং বিকেল ৫টার মধ্যে কর্মসূচির যাবতীয় কার্যক্রম শেষ করা। এই শর্তগুলোর কোন ব্যত্যয় না ঘটিয়েই বিএনপি এই সমাবেশ করেছে।

ঢাকা সংবাদদাতা মতিউর রহমান চৌধুরীর প্রতিবেদন।

please wait

No media source currently available

0:00 0:01:03 0:00

XS
SM
MD
LG