অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

সাফল্যের জনস্বীকৃতি পেলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা


সাফল্যের জনস্বীকৃতি পেলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। হাজারো মানুষ নেচে গেয়ে তাকে সংবর্ধনা জানালো। এ জন্য ঢাকার সোহরাওয়ার্দী উদ্যানও সেজেছিল নানা রঙে। বিচিত্র রঙের টুপি ও টি-শার্ট গায়ে আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা এতে অংশ নেন। রাজপথ ছিল আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের দখলে। সংবর্ধনা উপলক্ষে আগেই উদ্যানের চারপাশে কয়েক কিলোমিটার রাস্তা বন্ধ করে দেয়া হয়। নির্মাণ করা হয় ৪০টি তোরণ। মহাকাশে বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইটের সফল উৎক্ষেপণ, স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণের যোগ্যতা অর্জন, অস্ট্রেলিয়ায় গ্লোবাল লিডারশীপ এ্যাওয়ার্ড পাওয়া এবং ভারতের কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ডি লিট ডিগ্রি অর্জনের জন্যই আওয়ামী লীগের তরফে এই সংবর্ধনার আয়োজন করা হয়। সংবর্ধনাটি শেষ পর্যন্ত জনসভায় পরিণত হয়। শেখ হাসিনা দীর্ঘ বক্তৃতা করেন। তুলে ধরেন নানা সাফল্যের কথা। বাংলাদেশের অতীতের কথা স্মরণ করিয়ে দেন। বর্তমান বাংলাদেশকে নিয়ে গর্ববোধ করেন। ভবিষ্যত বাংলাদেশের স্বপ্ন শোনান। সংসদ উপনেতা সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী এতে সভাপতিত্ব করেন। দলটির সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের অভিনন্দন পত্র পাঠ করে শোনান। সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে বক্তৃতার শুরুতেই শেখ হাসিনা বলেন, এ সাফল্য জনগণের। তাই জনগণের উদ্দেশ্যেই এই সংবর্ধনা উৎসর্গ করা হলো। কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের গান উদ্ধৃত করে শেখ হাসিনা বলেন, এ মণিহার আমার নাহি সাজে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমি জনগণের সেবক। জনগণ কি পেল, সেটাই বড় চাওয়া। এ দেশের মানুষ যা কিছু অর্জন করেছে, মহান ত্যাগ করেই অর্জন করেছে।

শেখ হাসিনা বলেন, মৃত্যুর আগে তিনি মরতে রাজি নন। তার আগে যতক্ষণ জীবন আছে ততক্ষণ বাংলার মানুষের সেবা করে যাবেন।

শেখ হাসিনা বলেন, তার জমানায় সাড়ে ছয় হাজারের মতো নির্বাচন হয়েছে। প্রতিটি নির্বাচনে জনগণ ভোট দিয়ে তাদের প্রতিনিধি নির্বাচিত করেছে। গণতন্ত্র না থাকলে এটা কি করে সম্ভব?

please wait

No media source currently available

0:00 0:01:53 0:00

XS
SM
MD
LG