অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

গণহত্যার রায়ে রোহিঙ্গাদের সন্তোষ প্রকাশ


আন্তর্জাতিক বিচার আদালতে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে গণহত্যার রায় হবে, তাই ভোর থেকেই অধীর অপেক্ষায় ছিলেন রোহিঙ্গারা।
ক্যাম্পের মসজিদগুলোতে ফজরের নামাজের পর থেকেই শুরু হয় বিশেষ প্রার্থনা। আশ্রয় দানকারী বাংলাদেশ আর মামলা দায়েরকারী গাম্বিয়া থেকে শুরু করে, সকল সাহায্যকারীর জন্য দোয়া করেন আল্লাহর দরবারে।
রায় ঘোষনার খবর শুনতে দুপুর থেকেই শুরু হয় রোহিঙ্গাদের দৌঁড়-ঝাঁপ। বিভিন্ন দোকান কিংবা অফিসে গিয়ে ধর্ণা দেন আগ্রহী অনেকেই।
আন্তর্জাতিক বিচার আদালতের প্রেসিডেন্ট বিচারপতি আবদুলকোয়াই আহমেদ ইউসুফ যখন অন্তর্বর্তী আদেশ পড়ে শোনাচ্ছিলেন, ক্যাম্প থেকে কয়েক জন মাত্র রোহিঙ্গা- সরাসরি শুনার সুযোগ পান। তাৎক্ষণিক সন্তোষ প্রকাশ করেন তারা।
অন্তর্বর্তী আদেশ কার্যকর করার জন্য মিয়ানমারকে বাধ্য করতে আন্তর্জাতিক চাপের কথাও জানান রোহিঙ্গারা।
গণহত্যা মামলার রায় মিয়ানমারের বিরুদ্ধে হয়েছে- এমন খবর ক্যাম্পে ছড়িয়ে পড়লে, মসজিদগুলোতে শুরু হয় শুকরিয়া নামাজ আর বিশেষ মোনাজাত।
মিয়ানমারকে সব ধরনের গণহত্যা থেকে বিরত থাকতে এবং রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীকে সুরক্ষা দিতে নির্দেশনাসহ মোট চারটি আদেশ দিয়েছে আন্তর্জাতিক বিচার আদালত। এই রায়ের মাধ্যমে বিশ্ব জনমত গড়ে উঠলে, রোহিঙ্গাদের অধিকার যেমন নিশ্চিত হবে, তেমনি গণহত্যাকারীদেরও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হবে বলে প্রত্যাশা করেন রোহিঙ্গারা।

মোয়াজ্জেম হোসাইন সাকিল, ভয়েস অফ আমেরিকা, কক্সবাজার।

গণহত্যার রায়ে রোহিঙ্গাদের সন্তোষ প্রকাশ
please wait

No media source currently available

0:00 0:02:38 0:00


XS
SM
MD
LG