অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

বিশ্বে এখন করোনা রোগী ৪০ লাখ


বিশ্বে এখন করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা সাড়ে চল্লিশ লক্ষের কাছাকাছি এবং এতে প্রাণ হারিয়েছেন তিন লক্ষেরও বেশি মানুষ। ফিলিপিন্সে কর্মকর্তারা এ নিয়ে উদ্বিগ্ন যে এখন যখন হাজার হাজার লোক লুজোন দ্বীপে টাইফুন থেকে রক্ষা পেতে আশ্রয় স্থলে সমবেত হয়েছে, তখন করোনাভাইরাস ব্যাপক ভাবে সংক্রমিত হতে পারে। দ্বীপে টাউফুন এগিয়ে আসায় কোভিড লকডাউন সত্ত্বেও লোকজন বেরিয়ে আসতে বাধ্য হন।

ওদিকে চীনের উহানে, যেখানে গতবছর প্রথম এই ভাইরাস পাওয়া যায়, সেখানে নতুন করে সংক্রমণ দেখা দেয়ায় স্বাস্থ্য কর্মীরা প্রত্যেককে পরীক্ষা করা শুরু করেছে। মনে করা হচ্ছে কয়েক লক্ষ লোকের পরীক্ষা করতে ১০ দিনের মতো সময় লাগবে।

এদিকে আজই যুক্তরাষ্ট্রের নৌবাহিনীর হাসপাতাল জাহাজ USNS Mercy লস এঞ্জেলেস ছেড়ে যাচ্ছে। করোনাভাইরাসের রোগীদের চিকিৎসায় হিমশিম খাওয়া হাসপাতালগুলোকে সাহায্য করতে ২৭শে মার্চ লস এঞ্জেলেসের হাসপাতালে গিয়েছিল। নিউ ইয়র্ক রাজ্যের মধ্যাঞ্চলের পাঁচটি এলাকায় আজ থেকে লকডাউন শিথিল করে দেয়া হচ্ছে। তবে নিউ ইয়র্ক সিটি এখনো লকডাউনে থাকবে। ঐ রাজ্যের গভর্ণর অ্যান্ড্রু কিউমো, নতুন করে খুলে দেওয়া অঞ্চলের অধিবাসীদের বুদ্ধি খাটিয়ে সাবধানতার সঙ্গে কাজ করতে বলেছেন। রাশিয়া আজ থেকে করোনাভাইরাস পরীক্ষা শুরু করছে। সেখানে সংক্রমিত রোগীর সংখ্যা আড়াই লক্ষের বেশি যা কিনা বিশ্বে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে।

কোভিড-১৯ এ সর্বোচ্চ সংক্রমণ ঘটেছে যুক্তরাষ্ট্রে, এখানে সংক্রমিত রোগীর সংখ্যা ১৪ লক্ষ ছাড়িয়ে গেছে। চিলির রাজধানী স্যান্টিয়াগোতে সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্য লকডাউনের বিধিনিষেধ শিথিল করার পর এখন আবার করোনাভাইরাস সংক্রমণ বৃদ্ধি পাওয়ায় সেখানে বিশেষ কোয়ারেন্টিনের ব্যবস্থা করা হচ্ছে। চিলির স্বাস্থ্য মন্ত্রক জানায় বুধবার নতুন করে একদিনেই ২৬৬০ জন সংক্রমিত হলে আগের দিনের তুলনায় সেখানে করোনা রোগীর ৬০% বেড়ে যায়।

XS
SM
MD
LG