অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

পশ্চিমবঙ্গের রাজ্য প্রশাসনের সদর দপ্তর নবান্ন অভিযান ঘিরে উত্তপ্ত সংশ্লিষ্ট এলাকা


বাম ছাত্র-যুব সংগঠনের ডাকে পশ্চিমবঙ্গের রাজ্য প্রশাসনের সদর দপ্তর নবান্ন অভিযান ঘিরে আজ শুক্রবার উত্তপ্ত হয়ে উঠল সংশ্লিষ্ট এলাকা। হাওড়ার মল্লিক ফটকের কাছে মিছিল জমায়েত হয়ে নবান্নের দিকে এগিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে পুলিশ তা আটকে দেয়। ব্যারিকেড ভেঙে এগোতে চান আন্দোলনকারীরা। তাতেই রণক্ষেত্র হয়ে ওঠে নবান্ন সংলগ্ন এলাকা।

কর্মসংস্থান, বেকার ভাতা চালু-সহ একগুচ্ছ দাবিতে এসএফআই, ডিওয়াইএফআই-এর দু দিন ব্যাপী কর্মসূচি শুরু হয়েছে গতকালই । রাজ্যের হুগলি জেলার‘সিঙ্গুর থেকে নবান্ন চলো’ অভিযানের সূচনা হয়। রাতে ডানকুনিতে বিশ্রামের পর আজ সকালে থেকে ফের মিছিল করে নবান্নমুখী হন বাম ছাত্র ও যুব সংগঠনের প্রতিনিধিরা। এই অভিযান ঘিরে পরিস্থিতি উত্তপ্ত হতে পারে, এই আশঙ্কায় পুলিশ আগাম সতর্কতা নিয়েছিল। রাজ্যের প্রশাসনিক ভবন একেবারে নিরাপত্তার ঘেরাটোপে মুড়ে ফেলা হয়েছিল।আজ শুক্রবার দুপুরে নবান্নের দিকে মিছিল এগোতেই প্রত্যাশামতো পুলিশি বাধার মুখে পড়েন মিছিলে অংশগ্রহণকারীরা। পুলিশ এবং বিক্ষোভকারীদের মুখোমুখি সংঘর্ষে বেঁধে যায়।

মিছিল ছত্রভঙ্গ করতে পুলিশ লাঠিচার্জ করে, ছোঁড়া হয় কাঁদানে গ্যাসও। সময় গড়াতে দেখা যায়, মিছিল সামলাতে বেগ পেতে হয় পুলিশের। রাস্তা এমন রণক্ষেত্র হওয়ায় আশেপাশের বহুতলের ছাদগুলি মিছিলকারীদের দখলে চলে যায়। অভিযোগ, সেখান থেকে রীতিমতো জঙ্গি কায়দায় হামলা চলে পুলিশের উপর। ইটবৃষ্টির জেরে পুলিশ কর্মীরা আহত হন। ইটের আঘাতে মাথা ফেটে গিয়েছে এক সাংবাদিকের। জখম হয়েছেন বিক্ষোভকারীদেরও অনেকে। তবে এই রণক্ষেত্র চেহারার পরিস্থিতিতে নিজেদের দায় এড়িয়ে বাম ছাত্র-যুব সংগঠন দাবি করছে, তাঁরা নন, মিছিলে বহিরাগত হয়ে ঢুকে পুলিশের উপর হামলা চালিয়েছে আসলে তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীরা। এই অভিযোগ যথারীতি অস্বীকার করেছে তৃণমূল। উলটে বামেদের এই আন্দোলনের তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন শাসকদলের প্রতিনিধিরা।

please wait

No media source currently available

0:00 0:00:55 0:00


XS
SM
MD
LG