অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

অনেক দিন ধরে করোনা ভাইরাসের সঙ্গে লড়াই চলবে: মন্তব্য ভারতের প্রধানমন্ত্রীর


ভারতে একুশ দিনের সর্বাত্মক লকডাউন সরকারি ভাবে শেষ হচ্ছে ১৪ই এপ্রিল। কিন্তু তার সঙ্গে সঙ্গে সকলে যদি ঘর ছেড়ে বেরিয়ে এদিক ওদিক যাতায়াত করতে থাকেন, তা হলে এত দিন কষ্ট করে লকডাউন মেনে চলাটাই ব্যর্থ হয়ে যাবে। আজ এ কথা জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। দেশের মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে এক ভিডিও সম্মেলনে তিনি বলেন, কোনও মতে একুশ দিনের লকডাউন কাটিয়ে দেওয়াই যথেষ্ট নয়। আরও অনেক দিন ধরে করোনা ভাইরাসের সঙ্গে লড়াই চলবে। আমাদের পুরোপুরি সতর্ক থাকতে হবে, সব রকম সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে। আসুন আমরা সংকল্প নিই, আর কোনও ভারতীয়কে মরতে দেব না।

ভিডিও সম্মেলনে দিল্লিতে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ছিলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ্, প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিং এবং সরকারের উচ্চপদস্থ আমলারা। বড় একটা হলঘরে পরস্পরের সঙ্গে বেশ খানিকটা দূরত্ব বজায় রেখে বসেছিলেন তাঁরা। প্রতিটি রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীদের কাছে প্রধানমন্ত্রীর আবেদন, লকডাউনের মেয়াদ শেষে সকলেই যেন এক সঙ্গে না বেরোন দেখা দরকার। এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় যাওয়াটা যাতে পর্যায়ক্রমে হয়, তার ব্যবস্থা করতে হবে। বিশেষত পরিযায়ী শ্রমিকদের পরিমরি ছুটে ঘরে ফেরার চেষ্টা সবচেয়ে বিপজ্জনক হয়ে উঠতে পারে বলে মোদী সতর্ক করে দেন। তিনি বলেন, এই সময় নানা রাজ্যে ফসল কাটা হয়। কৃষকদের লকডাউন থেকে ছাড় দেওয়া হয়েছে। কিন্তু ওঁদের নিরাপত্তা যেন নিশ্চিত করা হয়।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, নানা জায়গায় মাঠভরা ফসল সময় মতো কেটে ঘরে তোলা হয়নি বলে নষ্ট হয়ে গিয়েছে। বস্তুত, দেশের বহু মানুষ যে এখনও লকডাউনের নিয়ম মেনে চলছেন না, সংবাদমাধ্যমে প্রতি দিন সেই খবর প্রচার হচ্ছে। তার প্রেক্ষিতে লকডাউনের মেয়াদ বাড়ানো হতে পারে বলে রটনা হয় এবং কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে জানানো হয় মেয়াদ বাড়ানোর কোনও পরিকল্পনা নেই। এই ঘোষণার পরেই ট্রেন ও বিমানের অগ্রিম বুকিং শুরু হয়ে যায়। এর পরিপ্রেক্ষিতেই প্রধানমন্ত্রী আজ মনে করিয়ে দেন, লকডাউন শেষ মানেই করোনা ভাইরাসের সঙ্গে লড়াই শেষ নয়। করোনার সংক্রমণের আশঙ্কা আরও অনেক দিন থাকবে। ততদিন আমাদের সতর্ক থাকতে হবে, অসাবধান হওয়া চলবে না।

XS
SM
MD
LG