অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

ভারতে তৈরি করোনা প্রতিষেধক কোভিশিল্ডকে ব্রিটেন অনুমোদন দিলো


লন্ডনের হিথ্রো বিমানবন্দরে ৫ নম্বর টার্মিনালে নতুন ভ্রমণবিধি সংক্রান্ত নোটিশ টাঙানো হয়েছে। ফাইল ফটো- রয়টার্স

ব্রিটেনের নতুন ভ্রমণ নীতিতে ভারতের প্রবল আপত্তি ও পাল্টা ব্যবস্থা নেওয়ার হুমকির মুখে ব্রিটেন আজ বুধবার ভারতে তৈরি করোনা প্রতিষেধক কোভিশিল্ডকে অনুমোদন দিয়েছে। তবে, তারপরেও বলা হয়েছে, দু'বার ভ্যাকসিন নেওয়া ভারতীয়দের এখনও ব্রিটেনে গেলে বাধ্যতামূলক কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে। কারণ, ভারতের ভ্যাকসিন সার্টিফিকেটে তাদের কিছু সন্দেহ আছে।

মাত্র দিন দুই আগে ব্রিটেন ভ্রমণ সংক্রান্ত একটি নতুন বিবৃতি জারি করেছে। তাতে বলা হয়েছিল, ভারতসহ ১৭টি দেশের বাসিন্দারা করোনা প্রতিষেধক নেওয়ার পরেও তাঁদের ব্রিটেনে দশ দিন কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে। কারণ, অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকা ভ্যাকসিনকে ব্রিটেন স্বীকৃতি দিলেও সেই একই ফর্মুলায় ভারতে তৈরি কোভিশিল্ডকে স্বীকৃতি দিতে তারা রাজি হয়নি।

ভারত এই নীতিকে চূড়ান্ত বর্ণবিদ্বেষী ও খামখেয়ালিপনার দৃষ্টান্ত বলে বর্ণনা করে। কংগ্রেস নেতা শশী তারুর বলেন, এর প্রতিবাদে তিনি ব্রিটেনে বেশ কিছু বক্তৃতা বন্ধ রাখছেন। আর একজন কংগ্রেস নেতা জয়রাম রমেশ বলেছেন, ব্রিটেন এখনও যে বর্ণবিদ্বেষী, এই নীতিতেই তার প্রমান। এরই মধ্যে ভারতের বিদেশমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর যুক্তরাষ্ট্র সফরে গেলে ব্রিটিশ বিদেশমন্ত্রীর সঙ্গে তাঁর দেখা হয়। জয়শঙ্কর তাঁকে বলেন, ভারতের পক্ষে এরকম বৈষম্যমূলক আচরণ মেনে নেওয়া সম্ভব নয়। ওই নীতি পরিবর্তনের অনুরোধ জানিয়ে জয়শঙ্কর প্রচ্ছন্ন হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন, ব্রিটেন নীতি বদল না করলে ভারতকেও পাল্টা ব্যবস্থা নিতে হবে।

এরপর আজ ব্রিটেন ঘোষণা করেছে যে, ভারতের কোভিশিল্ডকে তারা অনুমোদিত করোনা ভ্যাকসিনের তালিকায় জায়গা দিয়েছে। তবে যেহেতু ভারতের ভ্যাকসিন সার্টিফিকেট নিয়েই তাদের সন্দেহ রয়েছে, তাই এখনও ব্রিটেনে গেলে ভারতীয়দের কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে।

এ ব্যাপারে ভারতের স্বাস্থ্য দপ্তর থেকে বলা হয়েছে, ভ্যাকসিন সার্টিফিকেট একমাত্র ভারত সরকারের কো-উইন অ্যাপ থেকে দেওয়া হয় এবং সেটি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা হু-এর অনুমোদিত। কাজেই সন্দেহ থাকার কোনও কারণ নেই। আজ ব্রিটেন জানিয়েছে, করোনা প্রতিষেধক নিয়ে এ ধরনের যা কিছু বাধা রয়েছে, সেগুলো দূর করার জন্য ভারত সরকারের সঙ্গে আলোচনা চলছে।

XS
SM
MD
LG