অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

ভারত ও চীনের মধ্যে উত্তেজনা প্রশমন এখন মূল লক্ষ্য


ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর ও চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ওয়েই

রাশিয়ার রাজধানী মস্কোয় সাংহাই সহযোগিতা সংগঠনভুক্ত দেশগুলোর সম্মেলনের পাশাপাশি ভারত ও চীনের বিদেশমন্ত্রীরা নিজেদের মধ্যে আলোচনা করে একটি যৌথ বিবৃতি দিয়েছেন। তাতে বলা হয়েছে, দুই দেশই নতুন করে সীমান্ত সংঘর্ষ বন্ধ করে উত্তেজনা প্রশমনের উদ্দেশ্যে চুক্তি করার দিকে এগোবে। এর ফলে একটা জিনিস বোঝা যাচ্ছে যে বর্তমানে দুই দেশের মধ্যে এই সংক্রান্ত যে সব চুক্তি রয়েছে, সেগুলো কাজ করছে না।

দুই দেশের মধ্যে বিশ্বাসের অভাব যে প্রকট হয়ে উঠেছে, সেটা গত চার মাস ধরে সীমান্ত সংঘর্ষের মধ্য দিয়েই বোঝা যাচ্ছে। ইতিমধ্যে দ্বিপাক্ষিক সামরিক পর্যায়ের বৈঠক হয়েছে, কোনও কাজ দেয়নি। ভারতের প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং আর চীনের প্রতিরক্ষামন্ত্রীর মধ্যে মস্কোতে সাম্প্রতিক বৈঠকও ফলপ্রসূ হয়নি। কিন্তু গতকাল ভারতের বিদেশমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর ও চীনের বিদেশমন্ত্রী ওয়াং ওয়েই যে বৈঠক করেছেন, তাতে সামান্য হলেও আশার আলো দেখা দিয়েছে। যৌথ বিবৃতিতে বলা হয়েছে, এখন প্রথম কাজ হবে উত্তেজনা প্রশমন এবং দুই দেশের সৈন্যদের মধ্যে সংঘর্ষের সম্ভাবনা কমানো। তারপরে দরকার কী কী কারনে দুই দেশের মধ্যে অসুবিধে হচ্ছে খতিয়ে দেখা ও সেগুলো চিহ্নিত করে নতুন চুক্তি করা। এটা এখন আরও দরকার এই জন্য যে এই বছরই ভারত ও চীনের মধ্যে কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপনের সত্তর বছর পূর্তি হচ্ছে। সেই উপলক্ষে কিছু অনুষ্ঠানেরও আয়োজন করা হয়েছে। তবে তার মধ্যেই দুই দেশের সীমান্তে উত্তেজনার কারণে বাণিজ্যিক ও রাজনৈতিক দুই দিক থেকেই দুই দেশের ক্ষতি হয়েছে। ভারত চেষ্টা করছে চীনের থেকে আমদানি বন্ধ করে দিতে। তাতে চীনের যেমন ক্ষতি হবে, হঠাৎ এই বন্ধ করাতে ভারতেরও ক্ষতি হবে অনস্বীকার্য। কারণ সারা পৃথিবীর মতো ভারতীয় কোম্পানিগুলোও চীনের যন্ত্রাংশ ও অন্যান্য জিনিসপত্রের উপর নির্ভরশীল। সুতরাং প্রত্যেকেই এখন চাইছে উত্তেজনা তাড়াতাড়ি কমাতে। তার যে আশা দেখা দিয়েছে, আজকের বড় খবর সেটাই।

please wait

No media source currently available

0:00 0:01:56 0:00
সরাসরি লিংক


XS
SM
MD
LG