অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

হিন্দি চলচ্চিত্র পরিচালক বাসু চ্যাটার্জি মারা গিয়েছেন


হিন্দি চলচ্চিত্র পরিচালক বাসু চ্যাটার্জি আজ মুম্বাইয়ে মারা গিয়েছেন। তাঁর বয়স হয়েছিল ৯৩ বছর। বেশ কিছুদিন যাবৎ বয়স জনিত নানা রকম শারীরিক অসুস্থতায় ভুগছিলেন তিনি। রজনীগন্ধা, বাতেঁ বাতেঁ কি, চিতচোর, ইত্যাদি বেশ কিছু জনপ্রিয় বাণিজ্য সফল ছবির জন্য বাসু চ্যাটার্জিকে ভারতের সিনেমাপ্রেমী দর্শকেরা মনে রাখবে। একটা সময় ছিল, যখন বোম্বে ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিতৈ বাঙ্গালিদের রমরমা ছিল। চলচ্চিত্র পরিচালকদের মধ্যে বিমল রায়কে সবাই মনে রেখেছেন, তিনি অবশ্য কিছুদিন আগেকার, কিন্তু তার পর হৃষিকেশ মুখার্জি, বাসু চ্যাটার্জি, আর বাসু ভট্টাচার্য, এই তিনজন চলচ্চিত্র পরিচালনার জগৎকে রীতিমতো নেতৃত্ব দিতেন। বাসু চ্যাটার্জির সঙ্গে যাঁরা কাজ করেছেন, তাঁর পরিচালনায় যাঁরা ছবিতে অভিনয় করেছেন, তাঁদের মধ্যে শাবানা আজমির নাম অনেকেই জানেন। কিন্তু সবচেয়ে বেশি তিনি তুলে ধরেছেন অমল পালেকরকে। আসলে অমল পালেকরের কোনও তথাকথিত নায়কোচিত চেহারা ছিল না, কিংবা নায়কদের অন্যান্য যে গুণগুলো থাকে, যেমন মারপিট করতে পারা, সুন্দর চেহারার সঙ্গে স্মার্টনেস, যখন তখন কোমর দুলিয়ে নাচ, এর কোনওটাই অমল পালেকরের ছিল না। বাসু চ্যাটার্জি নিজেও ছিলেন খুব সাদাসিধে ধরনের মানুষ এবং তিনি তাঁর ছবিতেও সাদাসিধে মধ্যবিত্ত ভারতীয়দের জীবন কথাকেই তুলে ধরতে চেয়েছেন‌। যার জন্য রজনীগন্ধা, চিতচোর, বাতেঁ বাতেঁ কি, ইত্যাদি প্রায় প্রত্যেকটি ছবিতেই দেখা গিয়েছে মধ্যবিত্ত পরিবারের ছেলে, আর সেই একই রকম পরিবারের কোনও মেয়ের প্রেম কথা। যেটা ভারতের আপামর জনসাধারণ বিশ্বাস করে এবং নিজেদের সঙ্গে মিল খুঁজে পায়। সেই সাধারণ মানুষের জীবনযাত্রা ফুটিয়ে তোলার জন্যই বাসু চ্যাটার্জির ছবি এত জনপ্রিয় হয়েছিল, বাণিজ্য সফল হয়েছিল। পরবর্তীকালে তাঁর ছবিকে বলা হতো মধ্যপন্থার ছবি। অর্থাৎ বাণিজ্যিক ছবি না, যাতে নাচ গান এবং প্রচন্ড জাঁকজমক থাকবে, আবার আর্টফিল্মও না, যা শুধুমাত্র বিশেষ ধরনের কিছু দর্শকের কথা ভেবে তৈরি হবে। তার মাঝে এই মধ্যপন্থার ছবি তিনি নিপুণভাবে করে গিয়েছেন। শেষ ভাগে অবশ্যই তিনি আর কাজ করতে পারেননি, কিন্তু তাঁর কাছে পরের প্রজন্মের অনেক পরিচালক পথনির্দেশ পেয়েছেন। অমিতাভ বচ্চন লিখেছেন বাসু চ্যাটার্জিকে হারানো খুব মর্মান্তিক। শাবানা আজমি লিখেছেন, বাসুদার সঙ্গে কাজ করতে গিয়ে একবারও মনে হয়নি যে অভিনয় করছি, এত সাবলীলভাবে তিনি নির্দেশ দিতেন। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী একই কথা বলে শোক বার্তা জানিয়েছেন। তিনি লিখেছেন, বাসু চ্যাটার্জি ভারতের মধ্যবিত্ত জীবনকে এত সুন্দর ভাবে তুলে ধরেছেন, আমরা প্রত্যেকেই যেন নিজেদের খুঁজে পেয়েছি তাঁর সৃষ্ট চরিত্রের ভেতর দিয়ে।

দীপংকর চক্রবর্তী, ভয়েস অফ আমেরিকা, কলকাতা

XS
SM
MD
LG