অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট শনাক্ত হওয়ায় আতংক ছড়িয়েছে


করোনাভাইরাস নিয়ে আতংক আগেও ছিল। তবে নতুন করে আতংক ছড়িয়েছে ভারতীয় একটি ভ্যারিয়েন্টের সন্ধান পাওয়ার মধ্য দিয়ে। যদিও ঢাকার বিজ্ঞানীদের কেউ কেউ বলছেন, ভয়ের কিছু নেই। ভারতীয় ধরনটি দ্রুততম সময়ের মধ্যে ছড়িয়ে পড়ে। যে কারণে বিশ্বব্যাপী উদ্বেগ তৈরি হয়েছে। ইতিমধ্যেই প্রশ্ন উঠেছে, অ্যাস্ট্রাজেনেকার যে টিকা বাংলাদেশে ব্যবহার করা হয়েছে তা পুরোপুরি কাজ করবে কিনা! বাংলাদেশে এপ্রিলের শেষদিকে অন্তত চারজন রোগীর দেহে ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট শনাক্ত হয়। সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইন্সটিটিউট শনিবার তা প্রকাশ করেছে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক নাসিমা সুলতানা এক সংবাদ সম্মেলনে জানান, বেনাপোল সীমান্ত দিয়ে আসা আট জনের মধ্যে ছয় জনই করোনা শনাক্ত হন। এরমধ্যে দুইজনের নিশ্চিতভাবে এবং বাকি দুইজনের শরীরে ভারতীয় ভ্যারিয়েন্টের আংশিক হদিস পাওয়া গেছে।

১৭টি দেশে করোনাভাইরাসের ভারতীয় ধরন শনাক্ত হয়েছে। ভারতীয় ধরনটি যাতে বাংলাদেশে প্রবেশ করতে না পারে সেজন্য দেশটির সঙ্গে বর্তমানে সীমান্ত বন্ধ রয়েছে। ভারতীয় ধরন ইতিমধ্যেই প্রতিবেশি দেশ নেপালে হানা দিয়েছে। সেখানকার বিশেষজ্ঞরা বলছেন, পরিস্থিতি আশংকাজনক। দেশটিতে ভারতের মতো বিপর্যয় ঘটতে পারে।

ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট শনাক্ত হওয়ায় আতংক ছড়িয়েছে
please wait

No media source currently available

0:00 0:01:53 0:00
সরাসরি লিংক

সরকারিভাবে বাংলাদেশে ২০ দিন ধরে লকডাউন চলছে। অথচ সবই স্বাভাবিক। জেলায় জেলায় গণপরিবহন চলছে। বলা হয়েছিল, আন্তঃজেলা গণপরিবহন বন্ধ থাকবে। বাস্তবে এটাও বন্ধ নেই। লকডাউনের বিধি-নিষেধ উপেক্ষা করেই ঢাকা ছাড়ছেন ঘরমুখো মানুষজন। রাজধানী ঢাকার চিত্র আগের মতোই। শপিং-মলগুলোতে অস্বাভাবিক ভিড়। রাস্তাঘাটে তীব্র যানজট। সড়কে যানচলাচল এমনই যে, মানিকগঞ্জের পাটুরিয়া ও রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া ফেরিঘাটে দিনের বেলা যান চলাচল বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। এরমধ্যেই অবশ্য যাত্রীদের চাপে শনিবার দুপুরের দিকে ফেরি চলাচল শুরু করে ঘাট কর্তৃপক্ষ। হাজার হাজার যাত্রী ফেরিঘাটে অপেক্ষা করছেন।

ওদিকে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা কমেছে, তবে মৃত্যু বেড়েছে। সংক্রমিত হয়েছেন এক হাজার ২৮৫ জন। এটা গত ৪৫ দিনের মধ্যে সর্বনিম্ন। এসময় মারা গেছেন ৪৫ জন।

XS
SM
MD
LG