অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

সন্ত্রাসবাদী সন্দেহে কলকাতায় তিনজন গ্রেপ্তার, বিস্ফোরক, গুলি ও নগদ টাকা উদ্ধার


কলকাতা পুলিশ

রবিবারে দক্ষিণ কলকাতার হরিদেবপুর থেকে ধরা পড়া 'জামাতুল মুজাহিদিন বাংলাদেশ'-এর জঙ্গিদের সঙ্গে এদের কোনো যোগাযোগ আছে কিনা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। তবে পরপর কয়েকটি গ্রেপ্তারের ফলে মনে হচ্ছে, 'জেএমবি' কলকাতায় বেশ ভাল জাল বিছিয়ে রয়েছে।

কলকাতা থেকে আরও তিন জন সন্দেহভাজন সন্ত্রাসবাদীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে আজ পুলিশের একজন পদস্থ অফিসার জানিয়েছেন। তিনি বলেন, গতকালই পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য পুলিশের স্পেশাল টাস্ক ফোর্স গোপন সূত্রে খবর পেয়ে কলকাতার উপকণ্ঠে মাত্র ৩০ কিলোমিটার দূরে শাসন গ্রাম থেকে ওই তিনজনকে গ্রেপ্তার করে। এদের কাছ থেকে ১০ কিলোগ্রাম বিস্ফোরক, কুড়িটি বন্দুকের গুলি আর ৪০ হাজার টাকা পাওয়া গিয়েছে, যার কোনো সন্তোষজনক হিসেব তারা দিতে পারেনি।

পুলিশ কর্তা জানান, গত রবিবারে দক্ষিণ কলকাতার হরিদেবপুর থেকে ধরা পড়া 'জামাতুল মুজাহিদিন বাংলাদেশ'-এর জঙ্গিদের সঙ্গে এদের কোনো যোগাযোগ আছে কিনা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। তবে পরপর কয়েকটি গ্রেপ্তারের ফলে মনে হচ্ছে, 'জেএমবি' কলকাতায় বেশ ভাল জাল বিছিয়ে রয়েছে।

আজই কলকাতার লাগোয়া বারাসাত অঞ্চল থেকে আর এক জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে, যে গত রবিবার গ্রেপ্তার হওয়া জেএমবি জঙ্গিদের ঘনিষ্ঠ ছিল। তার কাছে দুটি ল্যাপটপ, একটি আই ফোন ও অনেক কাগজপত্র পাওয়া গিয়েছে। লালু সেন, ওরফে রাহুল সেন, ওরফে রাহুল কুমার নামে ওই ব্যক্তিকে জেরা করে জানা গিয়েছে, সে বাংলাদেশ থেকে আগত জঙ্গিদের এখানে টাকাপয়সার জোগান দিত। এ ছাড়া এদেশে থাকার জন্য ভুয়া নথিপত্র দিয়ে নকল আধার কার্ড, প্যান কার্ড, ভোটার কার্ড, ইত্যাদি তৈরি করে দিত।

রবিবার গ্রেপ্তার হওয়া নাজিউর রহমান ওরফে জয়রাম ব্যাপারী, রবিউল ইসলাম ও সাবির খান কয়েক মাস আগে বাংলাদেশ থেকে সীমান্ত পার হয়ে এখানে এসেছে। ওদের মতো আরো কত জন জঙ্গি এখানে ঢুকেছে তা জানার চেষ্টা চলছে।

এদিকে ওই তিন জন ধরা পড়ার পর কলকাতায় জেএমবির মাথা বলে পরিচিত শেখ মুন্সি গা ঢাকা দিয়েছে। ওই তিন জনের কাছে জানা গিয়েছে, শেখ মুন্সি কলকাতার দক্ষিণ শহরতলিতে একটি সাধারণ বাড়ি ভাড়া করে গত কুড়ি বছর ধরে আছে। কখনো ফলওয়ালা কখনো ছাতা সারাইওয়ালা ইত্যাদি ছদ্মবেশে এরা সকলে কাজ করত।

XS
SM
MD
LG