অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

আকায়েদউল্লার স্ত্রী-শ্বশুর-শ্বাশুড়িকে জিজ্ঞাসাবাদ


নিউইয়র্কের ম্যানহাটনে টাইমস্ স্কয়ারের পোর্ট অথোরিটি বাস টার্মিনালে বোমা হামলার সঙ্গে জড়িত সন্দেহে গ্রেপ্তারকৃত বাংলাদেশের নাগরিক আকায়েদউল্লাহর স্ত্রী, শ্বশুর, শাশুড়ি ও শ্যালককে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। জানার চেষ্টা করা হচ্ছে আকায়েদউল্লাহর অতীত, বর্তমান। সে কিভাবে আইএস-এর সঙ্গে জড়িয়ে গেল তাও জানার চেষ্টা করছেন গোয়েন্দারা।

মঙ্গলবার বিকেলে এই চারজনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের কার্যালয়ে নিয়ে যাওয়া হয়। এ সম্পর্কে পুলিশ সদর দপ্তরের এআইজি সহেলী ফেরদৌস বলেন, গ্রেপ্তার ঠিক নয়, এদেরকে জিজ্ঞাসাবাদ করার জন্য আনা হয়েছে।

ঢাকার ঝিগাতলা মনেশ্বর রোডের একটি বাড়িতে বাবা-মায়ের সঙ্গে থাকেন আকায়েদউল্লাহর স্ত্রী জান্নাতুল ফেরদৌস। ২০১৬ সালের জানুয়ারি মাসে আকায়েদউল্লাহর সঙ্গে তার বিয়ে হয়। আকায়েদউল্লাহ তখন সিটি কলেজে বিবিএর প্রথমবর্ষের ছাত্র। তার বাড়ি চট্টগ্রামের সন্দ্বীপে। আকায়েদউল্লাহর বাবা সানাউল্লা বেশ আগে থেকেই আমেরিকা প্রবাসী ছিলেন। ২০১১ সালে আকায়েদউল্লাহকে আমেরিকায় নিয়ে যান। আকায়েদউল্লাহরা তিন ভাই, দুই বোন। সে সবার বড়। মা, ভাইবোনদেরও আমেরিকায় নিয়ে যান আকায়েদউল্লাহর। সন্দ্বীপ উপজেলার মুসাপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আবুল খায়ের নাদিম বলেন, আকায়েদউল্লাহ ২০ বছর বয়স পর্যন্ত দেশে থাকলেও এলাকায় তাকে দেখা যায়নি।

আকায়েদউল্লাহর শ্যালক হাফিজ মাহমুদ জানান, ছেলেকে দেখার জন্য গত ১৮ই সেপ্টেম্বর সে দেশে আসে। এক মাস অবস্থানের পর ২২শে অক্টোবর যুক্তরাষ্ট্রে ফিরে যায়।

ওদিকে, পুলিশের আইজি শহীদুল হক জানিয়েছেন, আকায়েদউল্লাহর নামে বাংলাদেশে কোন অপরাধমূলক কর্মকান্ডের রেকর্ড নেই।

XS
SM
MD
LG