অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

রোহিঙ্গা শরনার্থীরা ভারত থেকে পালিয়ে যেতে শুরু করেছে


ဘဂၤလားေဒ့ရွ္ႏိုင္ငံ ဒုကၡသည္စခန္းက ရိုဟင္ဂ်ာဒုကၡသည္မ်ား Bhashan Char သို႔ ေျပာင္းေရႊ႕ေနထိုင္တဲ့ ျမင္ကြင္း။

ভারতে অবৈধ ভাবে প্রবেশের জন্য রোহিঙ্গা শরনার্থীদের সেখানকার সরকার গ্রেপ্তার করতে পারে এই আশংকায় তারা ভারত থেকে পালিয়ে যাচ্ছে কিংবা লুকিয়ে পড়ছে। গত মাসে নিরাপত্তা বাহিনী গোটা ভারতে বেশ কিছু সংখ্যক রোহিঙ্গাকে ধরে কারাগারে নিক্ষেপ করেছে। এর ফলে মিয়ান্মার থেকে পালিয়ে ভারতে আশ্রয় নেয়া মুসলিম শরনার্থীদের মনে ভয় দেখা দিয়েছে।

ভারতে অবৈধ ভাবে প্রবেশের জন্য রোহিঙ্গা শরনার্থীদের সেখানকার সরকার গ্রেপ্তার করতে পারে এই আশংকায় তারা ভারত থেকে পালিয়ে যাচ্ছে কিংবা লুকিয়ে পড়ছে। গত মাসে নিরাপত্তা বাহিনী গোটা ভারতে বেশ কিছু সংখ্যক রোহিঙ্গাকে ধরে কারাগারে নিক্ষেপ করেছে। এর ফলে মিয়ান্মার থেকে পালিয়ে ভারতে আশ্রয় নেয়া মুসলিম শরনার্থীদের মনে ভয় দেখা দিয়েছে। একজন রোহিঙ্গা শরনার্থী যিনি সপরিবারে গত মাসে ভারত থেকে বাংলাদেশে পালিয়ে যান বলেছেন , “ গত কয়েক বছর ধরে পশ্চিম বঙ্গে বেশ কয়েক শ’ রোহিঙ্গা বাসাস করছিলেন। কিন্তু ঐ রাজ্যে কয়েকজন রোহিঙ্গাকে গ্রেপ্তার করার পর , অনেকেই গা ঢাকা দিয়েছেন। '

অনেকেই ভারতের অন্যান্য রাজ্যে চলে গেছেন আবার অন্যরা বাংলাদেশেও প্রবেশ করেছেন।ঐ রোহিঙ্গা শরনার্থী ভয়েস অফ আমেরিকাকে বলেন , “ আমার পরিবার ধরা পড়লে ভারতীয় কর্তৃপক্ষ প্রথমে আমাদের কারাগারে পাঠাতো এবং তার পর মিয়ান্মারে পাঠিয়ে দিত। মিয়ান্মার এখনও রোহিঙ্গাদের জন্য অত্যন্ত অনিরাপদ জায়গা । আমরা সেই নরকে যেতে চাই না।

তাই আমি বাংলাদেশে পালিয়ে গেছি। ভারতের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের একজন কর্মকর্তা যিনি শরনার্থী বিষয়ে কাজ করেন , রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে অভিযা চালানো সম্পর্কে কোন রকম মন্তব্য করতে অস্বীকৃতি জানান। এক বছর আগে হিসেব করা হয়েছিল যে মোট ৪০ হাজার রোহিঙ্গা শরনার্থী ভারতের বিভিন্ন রাজ্যে ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে। ভারত ১৯৫১ সালের জাতিসংঘ শরনার্থী কনভেনশনে স্বাক্ষর করেনি এবং তাই সে দেশে প্রবেশকারী সব রোহিঙ্গাকে তারা অবৈধ অভিবাসী হিসেবে দেখে থাকে।

XS
SM
MD
LG